আজ শনিবার মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন

bal২১শে জুন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন। মূলত দলীয় হাইকমান্ড অনেকবার এই জেলার সম্মেলনের জন্য চেষ্টা করলেও নানা জটিলতা ও অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে এই সম্মেলন বার বার পিছিয়ে গিয়েছে।

এদিকে দীর্ঘ ২৪ বছর ধরে ৩ মেয়াদে এই জেলার সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর মো. মহিউদ্দিন এবং সাধারণ সম্পাদক পদে ২ মেয়াদে দায়িত্ব পালন করেছেন তারই অনুসারী মো. লুতফর রহমান। এই সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বানিজ্যমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য তোফায়েল আহম্মেদ।

সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন স্থানীয়সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন স্বাস্থমন্ত্রী মো. নাসিম, কেন্দ্রীয় নেতা আহম্মেদ হোসেন, আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য নূহ আলম লেলিন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক ও মুন্সিগঞ্জ ৩ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস, ফজিলাতুননেছা ইন্দিরা এমপি, সাবেক হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি এমপি এবং সুকুমার রঞ্জন ঘোষ এমপি।

এদিকে সম্মেলনকে ঘিরে শহরের বিভিন্ন স্থানে তোরণ নির্মাণ করছেন স্থানীয় নেতারা।

সম্মেলনকে ঘিরে এবং কেন্দ্রীয় নেতাদের আগমন উপলক্ষে পৃথকভাবে প্রস্তুতি নিতে দেখা গেছে সদস্য অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাসের সমর্থিত নেতা কর্মীদের। শহরের বালুর মাঠে সম্মেলন স্থানের কাজ শেষ পর্যায়ে। তবে স্থানীয় সচেতন মহল এই সম্মেলনকে শুধু আনুষ্ঠানিকতা মনে করছেন মাত্র। বেশিরভাগ কমিটি জেলার সভাপতি মো. মহিউদ্দিনের একক সিদ্ধান্তে হওয়ায় তিনিই আবার সভাপতি হবেন বলে রাজনৈতিক যোদ্ধারা মনে করছেন। তবে সাধারণ সম্পাদক পদে পরিবর্তনের আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

কিন্তু আওয়ামী লীগের তৃণমুল নেতা কর্মীরা এবার জেলার নেতৃত্বে পরবর্তন চান বলে দাবি করেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতারা। এদিকে এবারের সম্মেলনেও স্থানীয় সাংসদ ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাসের অনুসারীরা পদবঞ্চিত ও উপেক্ষিত হতে পারে বলে মনে করছেন তৃণমূল নেতাকর্মীরা।

ব্রেকিংনিউজ
======

১০ বছর পর মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ সম্মেলন আজ

দীর্ঘ এক দশক পর মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন আজ শনিবার জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এই নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে চাঙ্গাভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সম্মেলন সফল করতে এখানে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি। গুরুত্বপূর্ণ সড়ক তোরণ, ব্যানার ও ফেস্টুনে ভরে গেছে। এই সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকছেন দলের উপদেষ্টা ও শিল্পমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। সর্বশেষ ২০০৪ সালে জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হয়েছিল শহরের পুরনো কাছারির বালুর মাঠে। বিএনপির শাসনামলে আওয়ামী লীগের এই সম্মেলন জাতীয়ভাবে আলোচিত ছিল। বিএনপি সম্মেলন পণ্ড করতে রাস্তায় রাস্তায় নানাভাবে ব্যারিকেট সৃষ্টি করে। কাঠের গুঁড়ি ফেলে এবং নানাভাবে অন্তত ডজন খানেক ব্যারিকেট সৃষ্টি করে বিএনপি। এ সব উপেক্ষা করে তোফায়েল আহমেদ জনস্রোত নিয়ে মুন্সীগঞ্জ শহরে পৌঁছান এবং শত বাধা পেরিয়ে সম্মেলন করেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ লুৎফর রহমান জানান, বর্তমান সভাপতি বঙ্গবন্ধুর সহচর আলহাজ মোঃ মহিউদ্দিন এবারও সভাপতি প্রার্থী। এই পদে এখনও কোন প্রার্থীর নাম শোনা যায়নি। তবে সাধারণ সম্পাদক পদে বর্তমান যুগ্মসম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন প্রার্থী হচ্ছেন। এ ছাড়া বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আলহাজ লুৎফর রহমান এবারও প্রার্থী হবেন। এবারের সম্মেলনের গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে সভাপতি আলহাজ মোঃ মহিউদ্দিনের সঙ্গে তাঁর অনুজ জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আনিস-উজ-জামানের বিরোধ মিটে যাওয়ায় এখানে সংগঠনটি শক্তিশালী অবস্থানে। তাই এবার আনিস-উজ-জামান গুরুত্বপূর্ণ পদ পেতে পারেন বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

জনকন্ঠ