উৎসবে মেতেছে পদ্মাপারের মানুষ

padmaNightViewচীনের একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে পদ্মা সেতু নির্মাণে বাংলাদেশ সরকারের আনুষ্ঠানিক চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ায় পদ্মাপারের মানুষ একে অপরকে মিষ্টি খাইয়েছে। গতকাল বুধবার পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তের লোকজন এমন উৎসবে মেতেছিল।

এ প্রসঙ্গে কুমারভোগের বাসিন্দা নজরুল ইসলাম নীলু মৃধা বলেন, ‘পদ্মা সেতুর জন্য আমাকে জমি ও বাড়ি ছেড়ে দিতে হয়েছে। নানা সময় পদ্মা সেতু নিয়ে নানা অসুবিধা হলেও সেতু নির্মাণের চুক্তিটি শেষ পর্যন্ত হয়েছে। এখন আমি অনেক খুশি। সেতুটি নির্মিত হলে এ এলাকার ব্যাপক উন্নতি হবে।’ মাওয়ার বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম ফারুক বলেন, দেরিতে হলেও পদ্মা সেতুর কাজ শুরু হওয়ায় এখন ভালো লাগছে।

পদ্মাপারের বাবুল মিয়া বলেন, ‘পদ্মা সেতুর বিশাল কাজ দেইখ্যা বেশ ভালো লাগতাছে। এই চোটে কোনো ষড়যন্ত্রই আটকাইতে পারব না। সেতুর সাথে রেল আইলে, সেনানিবাস সবই হচ্ছে, আমাগো থেইক্যা ভাগ্যবান আর কারা, জমি কিছু গেলেও আমাগো সুভাগ্য।’

স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি বলেন, পদ্মা সেতু নির্মাণে আর কোনো সমস্যা নেই। চক্রান্তকারী মহলের সব যড়যন্ত্র ভণ্ডুল করে দিয়ে পদ্মা সেতুর কাজ বাস্তবায়িত হচ্ছে। সেতু নির্মাণের ফলে এ এলাকার মানুষ অর্থনৈতিকভাবে যেমন লাভবান হবে। তেমনি তাদের জীবনযাত্রায়ও বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে।

কালের কন্ঠ