পদ্মাসেতুর জন্য ঋণ নীতিমালা শিথিল

padma2পদ্মা বহুমুখি সেতু প্রকল্পে ব্যাংক গ্যারান্টি দিতে ব্যাংকগুলোকে একক গ্রাহক ঋণ সীমার নির্দেশনা পরিপালন করতে হবে না। জাতীয় অর্থনীতিতে পদ্মা সেতুর গুরুত্ব বিবেচনায় ও সরকারের অগ্রাধিকার গুরুত্ব বিবেচনা করে বাংলাদেশ ব্যাংক একথা জানিয়ে একটি নির্দেশনা জারি করেছে।

সোমবার জারি করা প্রজ্ঞাপনে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগের উপ মহাব্যবস্থাপক মো. আনোয়ারুল ইসলাম সই করেছেন।

এর আগে, জানুয়ারি মাসের ১৬ তারিখ নতুন ব্যাংক কোম্পানি আইন অনুযায়ী একক গ্রাহক ঋণ গ্রহিতার ঋণের সীমা ও শর্ত সংক্রান্ত নির্দেশনা আরও স্পষ্ঠ করে বাংলাদেশ ব্যাংক।

ওই নির্দেশনায় বলা হয়, এখন থেকে একক ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে ব্যাংক তার মোট দায়ের ৩৫ শতাংশের বেশি ঋণ দিতে পারবে না। এর মধ্যে ১৫ শতাংশ হবে ফান্ডেড। আর ২০ শতাংশ নন ফান্ডেড ঋণ। আর একক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে বড় ঋণ অনুমোদন ১০ শতাংশের বেশি হবে না।

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, যেসব ব্যাংকের খেলাপী ঋণ ৫ শতাংশের নীচে তারা সর্বোচ্চ ৫৬ শতাংশ বড় ঋণ দিতে পারবে। যাদের খেলাপী ঋণ ৫ শতাংশের বেশি কিন্তু ১০ শতাংশের নীচে সেসব ব্যাংক ৫২ শতাংশ বড় ঋণ দিতে পারবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, যেসব ব্যাংকের খেলাপী ঋণ ১০ থেকে ১৫ শতাংশ তারা ৪৮ শতাংশের বেশি বড় ঋণ দিতে পারবে না। ১৫ থেকে ২০ শতাংশ যাদের তারা ৪৪ শতাংশ খেলাপী ঋণ দিতে পারবে। আর ২০ শতাংশের বেশি খেলাপী ঋণ যেসব ব্যাংকের তারা কোনভাবেই ৪০ শতাংশের বেশি বড় ঋণ দিতে পারবে না।

তবে পুজিঁবাজারে নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান এবং বিদ্যুৎ খাতে অর্থায়নসহ ৫টি ক্ষেত্র এর বাইরে থাকবে বলেও নির্দেশনায় বলা হয়েছিল।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর