ডাক্তার সঙ্কটে চিকিৎসা সেবা ব্যাহত!

mghমুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল
ডাক্তার সঙ্কটে ১শ’ বেডের মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল চলছে ৫০ বেডের ডাক্তার দিয়ে। প্রতিদিন আউটডোরে ৬-৭শ’ রোগিকে দেখছেন মাত্র ৩-৪ জন ডাক্তার। কোন রকম বিরতি ছাড়া সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ও যোহর নামাজের বিরতির

পর দুপুর ২টা পর্যন্ত ওই রোগিদের দেখা হচ্ছে। ১শ’শয্যা বিশিষ্ট মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে মেডিসিন কনসালটেন্ট নেই ১০-১২ বছর ধরে। অর্থোপেডিক ডাক্তার নেই ৫-৬ মাস, রেজিওলজিস্ট নেই ১ বছর ধরে।

চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডাক্তার নেই ৪-৫ মাস ধরে। শ্রীনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে গত ৩১ শে মে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে একজন চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডাক্তার আনা হয়েছে। তিনি সপ্তাহে এখানে ৩দিন রোগি দেখবেন। তিনিও চলে যেতে পারেন যে কোন সময়। সুইপার সঙ্কট রয়েছে দীর্ঘদিন ধরে। এ সঙ্কটের কারণে হাসপাতালের পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতায় ব্যাঘাত ঘটছে। হাসপাতাল প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর আজোবধি এখানে কোন দারোয়ান নিয়োগ দেয়া হয়নি। এতে করে হাসপাতালে ভর্তি রোগিদের কোন নিরাপত্তা নেই।
mgh
হাসপাতালটি উন্মুক্ত থাকায় এখানে প্রায় ঘটছে মারামারিসহ অপ্রীতিকর ঘটনা। রোগি ও তার স্বজনরা হাসপাতালের বিভিন্ন ফাইল নিয়ে যাওয়ারও ঘটনা ঘটছে।

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. কামরুল করীম জানান, ডাক্তার সঙ্কটে হাসপাতালে প্রতিদিন আউটডোরের ৬-৭শ’ রোগিকে দেখছেন মাত্র ৪ জন ডাক্তার। একজন ডাক্তার গড়ে ১৫০জনের অধিক রোগি দেখায় রোগিরাও সঠিক চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন না। ডাক্তারকেও হিমশিম খেতে হচ্ছে। আবার মাঝে মধ্যে কোন ডাক্তার ছুটিতে গেলে ২-৩ জন ডাক্তার দিয়ে এতো রোগি দেখা বেশ কষ্টকর হয়ে পড়ে। এছাড়া হাসপাতালে জরুরি ভিত্তিতে দারোয়ান দরকার। দারোয়ান না থাকায় রোগি ও তার স্বজনরা হাসপাতালের ফাইল পত্র নিয়ে যান বলে তিনি অভিযোগ করেন। পরে ওই ফাইলপত্র সংগ্রহ করা কঠিন হয়ে পড়ে।

তিনি আরো জানান, ১০০ বেডের হাসপাতালটি চলছে ৫০ বেডের ডাক্তার দিয়ে। রোগিদের চিকিৎসা সেবা উন্নত করতে হলে এ হাসপাতালে দ্রুত শূণ্যপদে ডাক্তার নিয়োগ দেয়া দরকার।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা