‘এ সংসদ অবৈধ, এ সরকার অবৈধ’

kz hai3‘বিনা ভোটে নির্বাচিত সংসদ ও সরকার অবৈধ’ বলে দাবি করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। বুধবার বিকেলে মুন্সীগঞ্জের লক্ষ্মীগঞ্জ লঞ্চঘাট ময়দানে জেলা বিএনপি আয়োজিত জনসভায় তিনি এ দাবি করেন।

খালেদা জিয়া বলেন, জনগণ বলেছিল, সকল দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন হলেই তারা ভোট দেবে, কিন্তু আওয়ামী লীগ জোর করে নির্বাচন করেছে। জনগণ তাতে ভোট দেয়নি। ভোট কেন্দ্রে কুকুর পাহারায় ছিল। ১৫৪ আসনে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতায়ই হয়নি। বাকিরাও ভোটে নির্বাচিত হয়নি।

তিনি বলেন, যেহেতু তারা কোনো ভোট পায়নি, ভোটে নির্বাচিত নয়, সেহেতু ‘এ সংসদ অবৈধ, এ সরকার অবৈধ’।

তিনি অভিযোগ করেন, পবিত্র সংসদ চলে জনগণের। কিন্তু বর্তমান অবৈধ সরকারের নেতৃত্বাধীন সংসদে মিথ্যাচার, গালাগালি চলছে।

এর আগে, বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী আব্দুল হাইয়ের সভাপতিত্বে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হয়। কোরআন তেলাওয়াতের পর স্থানীয় বিএনপি নেতারা বক্তব্য রাখেন।

জনসভাস্থলে উপস্থিত রয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহা, যুগ্ম-মহাসিচব আমানউল্লাহ আমান প্রমুখ।

সকাল থেকেই সভাস্থলে অবস্থান করছেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর রিপন মল্লিক, সদর উপজেলা বিএনপি সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ, শহর বিএনপির সভাপতি ও পৌর মেয়র একেএম ইরাদত মানু, সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম, জেলা জাসাস সাধারণ সম্পাদক মঈনউদ্দিন সুমনসহ হাজারো নেতাকর্মী।

এদিকে ‘খালেদা জিয়ার আগমন শুভেচ্ছা স্বাগতম’; ‘বিএনপির ঘাঁটি, মুন্সীগঞ্জের মাটি’ প্রভৃতি স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠেছে লঞ্চঘাট এলাকায় জনসভাস্থল ও আশপাশের এলাকা।

খালেদা জিয়াকে শুভেচ্ছা জানিয়ে এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীন নির্বাচন দাবিতে বিভিন্ন ধরনের ব্যানার, ফেস্টুন ও প্ল্যাকার্ড নিয়ে জনসভাস্থলে জড়ো হয়েছেন নেতাকর্মীরা।

সকাল থেকে বৃষ্টি উপেক্ষা করে দলীয় নেতাকর্মীরা স্লোগান সহকারে খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে জনসভাস্থলে জড়ো হতে শুরু করেন।

দুপুর ২টার পর থেকে বিএনপি নেতাকর্মীদের ঢল নামতে শুরু করে লঞ্চঘাটের জনসভা এলাকায়।

এছাড়া, সকাল থেকেই জনসভা মঞ্চের সামনের ‍সারি ও আশপাশে ছাত্রদল, সেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা অবস্থান নিয়ে বিভিন্ন স্লোগান দিয়ে নেতাকর্মীদের উজ্জীবিত করে রাখেন।
kz hai3
অপরদিকে গুলশানের বাসা থেকে মুন্সীগঞ্জের পথে রওয়ানা হওয়ার পর খালেদাকে পথে পথে শুভেচ্ছা জানান স্থানীয় নেতাকর্মীরা। তবে এবার রাস্তার ধারে নেতাকর্মীদের উপচেপড়া ভিড় দেখা যায়নি। তার যাত্রাপথে যাত্রাবাড়ীতে সাবেক এমপি সালাহউদ্দিন ‌ও নবী উল্লাহ নবীর সমর্থনে মুষ্টিমেয় সংখ্যক নেতাকর্মীকে ব্যানার-ফেস্টুন হাতে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। সাইনবোর্ড আর চাষাড়াতেও দেখা গেছে খালেদা জিয়ার অপেক্ষায় গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিতে ভিজছেন অল্পসংখ্যক নেতাকর্মী।

অবশ্য দলীয় সূত্রের দাবি, আবহাওয়া খারাপ হওয়ার কারণেই খালেদার যাত্রাপথে নেতাকর্মীদের এতো কম উপস্থিতি।

খালেদা জিয়াকে শুভেচ্ছা জানাতে মুন্সীগঞ্জ শহর ও এর আশপাশের এলাকাজুড়ে অসংখ্য ব্যানার, ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ড লাগানো হয়েছে।

বুধবার সকাল থেকেই জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে দলীয় নেতাকর্মীরা মুন্সীগঞ্জ শহরের ধলেশ্বরী নদীর তীরে জনসভাস্থলে জড়ো হন।

দেশব্যাপী গুম, খুন, অপহরণ ও দুর্নীতির প্রতিবাদে বিএনপি এ জনসভা আয়োজন করেছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর