শ্রীনগরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের শিক্ষানীতি বরখেলাপের অভিযোগ

oniomজেলা প্রাশাসকের বরাবরে দরখাস্ত
ব.ম শামীম: মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর ১নং প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জিএম লতিফের বিরুদ্ধে শিক্ষানীতি বরখেলাপের অভিযোগ এনে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদলের বরাবরে সোমবার ফ্রন্ট ডেস্কে দরখাস্ত করা হয়েছে।

শ্রীনগর সিজুয়ে মডেল জুনিয়র হাই স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা মো. শাহে আলম এবং লিটিল এনজেলস ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের সভাপতি জাহান আরা বেগম পৃথক দরখাস্তে এ অভিযোগ করেন। এর আগে তারা গত ১৩ই এপ্রিল এ বিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের বরাবরে অভিযোগ দায়ের করলে এ বিষয়টি তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নিদের্শ দেয় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

কিন্তু জিএম লতিফ এলাকায় প্রভাবশালী শিক্ষক হওয়ায় মুন্সীগঞ্জ প্রাথমিক শিক্ষা আফিস এবং শ্রীনগর প্রাথমিক শিক্ষা অফিস অভিযোগকারী কর্তৃপক্ষকে অবহিত না করে তাদের মনগড়া প্রতিবেদন দাখিল করে বলে জানান ভূক্তভোগী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা।

দরখাস্ত সুত্রে জানাগেছে, শ্রীনগর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উক্ত শিক্ষক পার্শ্ববর্তী কিন্ডার গার্টেন বিদ্যালয়গুলোর সাথে প্রতিযোগীতায় না পেরে দির্ঘদিন যাবৎ কিন্ডার গার্টেন স্কুলগুলোর বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্ডার গার্টেন বিদ্যালয়গুলোর ৫ম শ্রেণীর মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীর অভিবাবকদের ফুসলিয়ে নানা কৌশলে তার বিদ্যালয়ে এনে টিসি ছাড়া ভর্তি করে সমাপনী পরিক্ষায় অংশগ্রহন করিয়ে ভাল ফলাফল দেখাচ্ছেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছে ভুক্তভোগী কিন্ডার গার্টেনগুলি। তাদের দাবী তারা শিশু হতে ৫মশ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষাদানের মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদের দক্ষ করে গড়ে তুলছেন।

আর উক্তশিক্ষক নিজ বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের ভাল শিক্ষা নাদিয়ে কিন্ডার গার্টেনের ছাত্র-ছাত্রীদের কৌশলে নিয়ে সমাপনী পরিক্ষায় অংশগ্রহন করিয়ে ভাল ফলাফল দেখাচ্ছেন।

এছাড়া উক্ত শিক্ষক উপজেলা শিক্ষা সমিতির সভাপতি হওয়ায় সমপনী পরিক্ষা কেন্দ্রে প্রভাব খাটানো, নিজ বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের পাশাপাশী বসিয়ে প্রছন্দের শিক্ষকদের দিয়ে ঐ কক্ষের দায়িত্ব পালন করানো এবং পরিক্ষা হলে প্রশ্নপত্র সমাধান করে দেওয়া সহ তার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

এ ব্যাপারে তার সাথে যোগাযোগ করা হলে সে উক্ত বিষয়গুলো এক বিন্দুও সঠিক নয় বলে উল্লেখ করে জানান, কিছু ছাত্র-ছাত্রী তাদের অভিবাবকদের অনুরোধে শিক্ষা কর্মকর্তার সাথে আলোচনা সাপেক্ষে টিসি ছাড়া ভর্তি করেছি।