যানজটের নামে চলছে সিন্ডিকেটর মাধ্যমে ব্যাপক চাঁদাবাজি

chadabaziমাওয়া নৌরুটে ফেরী সঙ্কট
রুবেল ইসলাম: দক্ষিণবঙ্গের প্রবেশদ্বার ঢাকা মাওয়া মহাসড়কের মাওয়া কাওড়াকান্দি নৌরুটে দেখা দিয়েছে ফেরী সঙ্কট এতে করে গত দু’দিন ধরে এ রুটে ১৭টি ফেরীর মধ্যে সচল রয়েছে মাত্র ১৬টি ফেরী। ফলে উভয় ঘাটে দেখা দিয়েছে ট্রাকজট। জানা গেছে, গত কয়েকদিন পূর্বে মাওয়া থেকে১টি ফেরি মেরামতের জন্য নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে নিয়ে যাওয়া হয়।

একই সময়ের মধ্যে বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ কে চাপের মুখে পরতেহয় এতে করে মাওয়া কাওড়াকান্দি নৌরুটে দেখা দিয়েছে ফেরী সঙ্কট। মাওয়া বিআইডব্লিউটিসির ম্যানেজার বাণিজ্য শেখর চন্দ্র রায় জানান, বর্তমানে এ রুটে ১৭টি ফেরীর মধ্যে ২টি রো রো, ৭টি ডাম্পুসহ মোট ১৬টি ফেরী চলাচল করছে। এ রুটের ১টি ফেরী বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে মেরামতের জন্য অবস্থান করছে বলে তিনি জানান। এদিকে ঢাকা মাওয়া মহাসড়কের মাওয়া ঘাটে সপ্তাহ খানের ধরে যানজটের নামে চলছে যৌথবাহিনী সিন্ডিকেটর ব্যাপক চাঁদাবাজি। সিন্ডিকেট চক্রের প্রধান হিসেবে মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা এ চাঁদার টাকা সংগ্রহ করছে ট্রাক চালকদের কাছ থেকে। যৌথবাহিনীর এ সিন্ডেকেট চক্রকে চাঁদা না দিয়ে কোন ট্রাক ফেরিতে উঠতে পারেনা। আর যদি সিরিয়াল ভঙ্গ করে কোন ট্রাক আগে যেতে চায়, তবে সে ট্রাককে দিতে হয় মোটা আঙ্কের চাঁদা।

অনেকটা খোলামেলা ভাবেই এখন এ চাঁদার টাকা সংগ্রহ করছে মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ি সদস্যরা।

অনুসন্ধানে জানা যায়, দক্ষিনবঙ্গগামী পন্য বোঝাই ট্রাকের বিশাল লাইন পড়ে গেছে। মাওয়া ঘাট থেকে ৩ কি.মি. দূরে শ্রীনগর উপজেলার দোগাছি বাজার ছাড়িয়ে যাচ্ছে এ যানজট। আর এই সুযোগে মাওয়া ঘাটে গড়ে উঠা পুলিশ, আনসার ও বিআইডব্লিউটিসির সমন্বয়ে গড়ে উঠা যৌথবাহিনী সিন্ডিকেট এসব ট্রাক থেকে দেদারছে চাঁদা সংগ্রহ করছে।

আর এ যৌথবাহিনীকে মদদ দিচ্ছে নৌ পুলিশ ফাঁড়ি সদস্যরা এ ব্যাপারে মাওয়া নৌপুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ এসআই খন্দকার খালিদ হোসেন জানান, কিছু কিছু গাড়ীর গুরুত্ব অনুভব করে আমারা সিরিয়াল ভঙ্গ করে ট্রাক পার করতে দেই। কারণেই হয়তো লোকজন সন্দেহ করছে চাঁদা নিয়ে আগে যেতে দিচ্ছি। আসলে চাঁদা আদায়ের ঘটনাটি সত্য নয়

বর্তমানকন্ঠ