৮০ ফুট গভীরে কাত হয়ে আছে লঞ্চটি

Rmiraz1দুই শতাধিক যাত্রী নিয়ে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় মেঘনা নদীতে ডুবে যাওয়া লঞ্চের অবস্থান সনাক্ত করেছে উদ্ধারকর্মীরা। এমভি মিরাজ-৪ নামের লঞ্চটি নদীতে ৮০ ফুট পানির নিচে কাত হয়ে পড়ে রয়েছে বলে উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয়ের পেটি অফিসার এম এইচ এ মাসুদ জানিয়েছেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ঘটনাস্থলে পৌঁছে তারা লঞ্চের অবস্থান সনাক্ত করতে কাজ শুরু করেন। আধা ঘণ্টার মাথায় নদীতে ডুবে থাকা লঞ্চের অবস্থান বের করেন।

“লঞ্চটি ৮০ ফুট পানির নিচে কাত হয়ে পড়ে রয়েছে।”

উদ্ধারকারী জাহাজকে সঠিক অবস্থানে নিয়ে লঞ্চটি টেনে তোলা হবে জানিয়ে তিনি বলেন, রাত ১২টা নাগাদ লঞ্চটি তোলা যেতে পারে।

উদ্ধারকর্মীরা জানান, দ্বিতীয় তলা এই লঞ্চের দৈর্ঘ ১২০ ফুট এবং প্রস্থ ৩৫ ফুট। এর আনুমানিক ওজন ১১০ টন।

অন্যদিকে উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয় প্রায় ২৫০ টন পর্যন্ত তুলতে পারে।

রাজধানীর সদরঘাট থেকে দুই শতাধিক যাত্রী নিয়ে শরীয়তপুরের সুরেশ্বর যাওয়ার পথে বেলা সাড়ে ৪টার দিকে গজারিয়ার দৌলতদিয়ায় এমভি মিরাজ-৪ নামের লঞ্চটি নদীতে ডুবে যায়।

সন্ধ্যা ৭টা নাগাদ নিহত ১২ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে বলে মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদল জানিয়েছেন।

লঞ্চের ৪০ জন যাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে।

এখনো শতাধিক যাত্রী নিখোঁজ রয়েছে বলে উদ্ধার যাত্রীরা জানিয়েছেন।

নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান খান, স্থানীয় সাংসদ মৃনাল কান্তি দাস, বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান শামসুদ্দোহা তালুকদার, মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদল, নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আনিছুর রহমান মিঞা এবং মুন্সীঞ্জের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মো. জাকির হোসেন মজুমদার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে উদ্ধার কাজ তদারক করছেন।

বিডিনিউজ