গৃহবধুকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর স্বামীর আত্মসমর্পন

ratna14মুন্সীগঞ্জ শহরের নতুনগাঁও এলাকায় ঘুমন্ত অবস্থায় মুক্তা বেগম (২৪) নামে এক গৃহবধুকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পন করেছেন স্বামী মোস্তাকিন (২৯) নামের এক যুবক। আজ মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৪ টার সময় হত্যাকান্ড ঘটিয়ে দুপুর সাড়ে ১২ সময় সময় মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় গিয়ে হত্যাকান্ডের দায় স্বীকার করে তিনি আত্মসমর্পন করেণ। এ ঘটনায় শহরে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি (তদন্ত) মো. ইয়ারদৌস হাসান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মঙ্গলবার দুপুর ১২ টার সময় মোস্তাকিন মুন্সীগঞ্জ সদর থানার সামনে ঘোরাফেরা করছিলেন। এ সময় সন্দেহ হলে পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে ঘাতক স্বামী তার ঘুমন্ত স্ত্রীকে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছেন বলে জানালে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। মুক্তা বেগম নামের ওই গৃহবধুকে হত্যার দায়ে বর্তমানে ঘাতক স্বামী মোস্তাকিন সদর থানা হাজতে পুলিশের হেফাজতে রয়েছেন। কি কারণে, কেন এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে তার রহস্য উদঘাটনে গ্রেপ্তারকৃত মোস্তাকিনকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।
ratna14
ওসি (তদন্ত) আরও জানান, সদর থানা-পুলিশ গৃহবধু মুক্তা বেগমের বাড়ীর লোকজনকে হত্যাকান্ডের বিষয়টি অবগত করেছেন। গৃহবধু মুক্তা বেগম নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও থানার চড়লা গ্রামের হাবিবুর রহমানের মেয়ে। গত ৫ বছর আগে মুন্সীগঞ্জ শহরের নতুনগাঁও এলাকার মোহাম্মদ আলী দেওয়ানের ছেলে মোস্তাকিনের সাথে বিয়ে হয়।

এবিনিউজ

====================

মুন্সীগঞ্জে গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগে স্বামী আটক

জেলা শহরের নতুনগাঁও এলাকায় মুক্তা বেগম (২৪) নামে এক গৃহবধূকে হত্যা করার অভিযোগে স্বামী মো. মোস্তাকিনকে (২৮) আটক করেছে পুলিশ।

নতুনগাঁও এলাকা থেকে মঙ্গলবার দুপুরে মোস্তাকিনকে করা হয়।

মুক্তা নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার চরলা গ্রামের হাবিবুল্লাহর মেয়ে। মোস্তাকিন একই এলাকার মো. আলী দেওয়ানের ছেলে।
mustakin
স্থানীয়দের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, ৬ বছর আগে মুক্তা ও মোস্তাকিনের বিয়ে হয়। এই দম্পতির ২টি ছেলে রয়েছে বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি (তদন্ত) ইয়ারদৌস হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করে দ্য রিপোর্টকে জানান, মঙ্গলবার ভোর ৪টার দিকে ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় মুক্তার গলায় ওড়না পেঁচিয়ে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার কথা পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে মোস্তাকিন।

তবে হত্যার কারণ জানায়নি বলে ওসি জানিয়েছেন।

দ্য রিপোর্ট

==================

মুন্সীগঞ্জে স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামীর আত্মসমর্পন

মুন্সীগঞ্জ শহরের নতুনগাঁও এলাকায় ঘুমন্ত অবস্থায় স্ত্রী মুক্তা বেগমকে (২৫) শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পন করেছেন মোস্তাকিন (২৭) নামে এক যুবক। মঙ্গলবার ভোর ৪টার দিকে হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় গিয়ে হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে তিনি আত্মসমর্পন করেন।

এ ঘটনায় শহরে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

বর্তমানে মোস্তাকিন মুন্সীগঞ্জ সদর থানা হাজতে রয়েছেন। কি কারণে এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে তার রহস্য উদঘাটনে গ্রেফতারকৃত মোস্তাকিনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মোস্তাকিন মুন্সীগঞ্জ সদর থানা প্রাঙ্গণে ঘোরাফেরা করছিলেন। এসময় সন্দেহ হলে পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। একপর্যায়ে তিনি তার ঘুমন্ত স্ত্রীকে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছেন জানালে পুলিশ তাকে আটক করে।

পরে থানা পুলিশ মোস্তাকিমের শ্বশুর বাড়ির লোকজনকে হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি জানায়।

জানা গেছে, মোস্তাকিম মুন্সীগঞ্জ শহরের নতুনগাঁও এলাকার মোহাম্মদ আলী দেওয়ানের ছেলে। পাচঁ বছর আগে তিনি নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানার চড়লা গ্রামের হাবিবুর রহমানের মেয়ে মুক্তাকে বিয়ে করেন।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মো. ইয়ারদৌস হাসান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, নিহত গৃহবধূর স্বজনদের বিষয়টি জানানো হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর