লৌহজংয়ে একযুগ পর কুষ্ঠ রোগীর সন্ধান লাভ

lau kustaদীর্ঘ একযুগ পর লৌহজংয়ে এক কুষ্ঠ রোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার লৌহজং সদর হাসপাতালে চিকিৎসা করতে এসে উপজেলার মর্শদগাঁও গ্রামের আব্দুল হালিম (৫২) জানতে পারে তার শরীরে তিন বছর যাবত কুষ্ঠ রোগ বহন করে বেরাচ্ছে। তিনি সামান্য একজন দজির্, সেলাই কাজ করে তার পরিবারের খরচ চালান। দীর্ঘ ৩ বছর এই রোগের চিকিৎসা করতে গিয়ে এখন তিনি সর্বশান্ত প্রায়।

লৌহজং সদর হাসপালে এসে এই প্রথম জানতে পারে তার এই রোগ হয়েছে। এর আগে তিনি ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা সহ বহু ঔষধ খেয়ে রোগ সারাতে পারেনি। শেষে লৌহজং সদর হাসপাতালে এসে জানতে পারে তার শরীরে যে রোগ হয়েছে তার নাম কুষ্ঠ। তবে এ রোগ নিয়ে এখন ভয় পাওয়ার কিছু নেই, ডাক্তারের মতে এটা ছোয়াছুয়ি রোগ হলেও এর প্রতিশেধক তৈরি হয়েছে। এই রোগের বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ আশুতোষ ভক্ত জানান, রোগটি নিয়ে এখন তেমন কোন ভয় নেই, সরকারি ভাবে বিনা খরচে এর চিকিৎসা ব্যবস্থা ও রয়েছে।
lau kusta
এই রোগের লক্ষন হলো, চামড়ায় ফ্যাকাশে বা লালচে দাগ, হাতে পায়ে ঘা ও বিকলাঙ্গঁতা বা গুটি ঘা, যা অনুভুতিহীন। এটা সাধরনত হাচিঁ ও কাশির মাধ্যামে ছড়ায়। এর চিকিৎসা ব্যবস্থা হচ্ছে মাল্টিড্রাগ ট্রিটমেন্ট (ডেপসন, ক্লোফাজিমিন ও রিফএমপিসিন) ৬ মাস থেকে ১বছর এই কোর্স চলবে। এর প্রতিকারের উপায় হচ্ছে প্রথমিক অবস্থায় থাকতেই নিকটস্থ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে যেয়ে চিকিৎসা গ্রহন করা।

এই রোগ বিশেষ করে শরীরের চামড়া, প্রান্তিক স্নায়ু, চোখ, অন্ডকোষ ও আন্যান্য অঙ্গে হতে পারে। স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানান, এর আগে দীর্ঘ একযুগ পুর্বে একজন রোগীর চিকিৎসা করা হয়েছে এ হাসপাতালে এমন রেকর্ড রয়েছে এবং চিকিৎসায় রোগী ভালো ও হয়েছে বলে তিনি জানান। তবে এই রকম রোগী আরো আছে কিনা তার মাঠ পর্যায়ে স্বস্থ্য কর্মকর্তা ও এনজিও কর্মীরা জরিপ চালাচ্ছে ইউনিয়ন পর্যায়ে।

বাংলাপোষ্ট