মৎস্য কর্মকর্তার হাসাইল মাছ ঘাটে দায়সারা অভিযান

Fish-2প্রত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর : ২ মন জাটকা জব্দ
ব.ম শামীম: টঙ্গীবাড়ীতে জাটকা বিক্রির মহোৎসব শিরোনামে ২৬শে এপ্রিল শনিবার দৈনিক যুগান্তর, দৈনিক কালেরকন্ঠ, মুন্সীগঞ্জের কাগজ প্রত্রিকা এবং বাংলাপোষ্ট, মুন্সীগঞ্জ ডট কম. মুন্সীগঞ্জ বার্তা ডট কম অনলাইনসহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর গতকাল রোববার সকালে টঙ্গীবাড়ী উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আখতার হোসেন হাসাইল মাছ ঘাটে অভিযান চালিয়ে ২ মন জাটকা জব্দ করেছেন। পরে এগুলো হাসাইল, ঝিনাইসার এবং মান্দ্রা মাদ্রাসার শিক্ষার্ত্রীদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।

তবে হাসাইল মাছঘাটের চেয়ে দিঘির পাড় মাছ ঘাটে অনেক বেশি জাটকা বিক্রি হওয়ার পরও সে ওই মাছ ঘাটে অভিযান না চালানোর কারনে এলাকার মানুষের মনে ক্ষোভ বিরাজ করছে। হাসাইল বাজারের এক মৎস্য ব্যাবসায়ী নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, হাসাইল বাজার নিয়ে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশের কারনে কেবল হাসাইল বাজরে সে অভিযান চালিয়েছে। কিন্তু এর চেয়ে অনেক বেশি মাছ দিঘির পাড় ঘাটে বিক্রি হলেও সে ওই ঘাটে অভিযান চালাচ্ছেন না। মাসোহারা বন্ধে হয়ে যাওয়ার ভয়ে তিনি দায়সারা অভিযান পরিচালনা করছেন।

এছাড়াও গতকাল উপজেলার মটুকপুর ও রংমেহার এলাকায় মাছ ব্যাবসায়ীদের গ্রামে গ্রামে ঘুরে জাটকা ইলিশ বিক্রি করতে দেখা গেছে। বাইঘা, পাচঁগাওঁ, পুড়া, দিঘিরপাড়, কামাড়খাড়া বাজারে জাটকা ইলিশ বিক্রির খবর পাওয়া গেছে। হাসাইল বাজারে অভিযান পরিচালনার সময় মৎস্য কর্মকর্তার সাথে ছিলেন পাচঁগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান আলি আহামেদ সেখ। তিনি জানান, প্রতিদিনের মতো ব্যাপক জাটকা ঘাটে আসতে শুরু করেছিলো। আমরা হাসাইল বাজারে পৌছাঁ মাত্র মাছ ব্যাবসায়ীদের ইনফরমার মাছ ঘাটে গিয়ে দৌড়ে আমাদের আসার খবর দেয়। খবর পেয়ে জাটকা মাছ ব্যাবসায়ী ও জেলেরা পালিয়ে যায়। সে আরো জানায়, আমি পরে দিঘির পাড় মাছ ঘাটে গিয়ে দেখি সেখানে জাটকা বিক্রির মহোৎসব চলছে। প্রায় প্রতিটি আড়দে ১ ইঞ্চি মাপের ইলিশের পোনা ব্যাপক হারে বিক্রি হচ্ছে।