টঙ্গীবাড়ীতে হত্যা মামলার বাদীকে পথরোধ করে প্রাণ নাশের হুমকি

courtsমানবধিকার সংস্থার সহযোগীতায় থানায় ডায়রী
ব.ম শামীম: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার উত্তর শিমুলিয়া গ্রামের কে.শিমুলিয়া ইউনিয়ন ৪নং ওর্য়াড আওয়ামীলীগ সভাপতি চাঞ্চল্যকর রিপন ফকির (৪২) হত্যা মামলার বাদী ও স্বাক্ষীকে পথরোধ করে প্রাণ নাশের হুমকীর পর দির্ঘদিন আত্মগোপন থেকে শনিবার মানবধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস রিভিউ সোসাইটির সহযোগীতায় টঙ্গীবাড়ী থানায় সাধারণ ডায়রী করেছেন বাদী স্বপন ফকির।

স্বপন ফকির জানান, গত ১৫ই এপ্রিল আমি এবং স্বাক্ষী মেছের শেখ মুন্সীগঞ্জ আদালতে স্বাক্ষী দেওয়ার উদ্দেশ্যে নিজ বাড়ি শিমুলিয়া গ্রাম হতে বের হয়ে টঙ্গীবাড়ী বাজারে পৌছাঁলে আমাদের পথরোধ করে হুমকি দেয় মামলার আসামী মিলন, শামসূল, আল-আমিন, মানিক, মাসুম ও তাদের আত্মীয় স্বজনগন। এ সময় আসামী মিলন বলে আদালতে স্বাক্ষী দিতে গেলে তোকে তোর ভাইয়ের মতো খুন করা হবে।

এ ঘটনার পর তারা আদালতে না গিয়ে তাদের আতিœয়র বাড়িতে আশ্রয় নেয়। এরপর হতে সে বিভিন্ন স্থানে আতœগোপন করে দিনাতিপাত করছেন। হিউম্যান রাইটস রিভিউ সোসাইটির সহকারী পরিচালক সোহেল আহমেদ জানান, বাদীর আবেদনের প্রেক্ষিতে আমরা মামলাটি প্রাথমিক তদন্ত শুরু করেছি। সে প্রাণ ভয়ে সাধারন ডায়রী করতে না পারায় আমরা তাকে ডায়রী করার জন্য থানায় নিয়ে এসেছি।

উল্লেখ্য, গাম্য সলিসী বিচারের জের ধরে গত ২ই জুন ২০১২ ইং তারিখে রিপন ফকিরকে ধারালো চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে যখম করে এলাকার কতিপয় দূর্বত্ত। পরে ঢাকা ম্যাডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়। এ ঘটনায় নিহত রিপনের ভাই স্বপন বাদী হয়ে ১৩ জনকে আসামী করে ৪ই জুন ২০১২ ইং তারিখে টঙ্গীবাড়ী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

বাদী স্বপন আরো জানান, আমি আসামীদের ভয়ে এলাকায় যেতে পারছিনা। বাড়ি ঘর তালা দিয়ে বিভিন্নস্থানে আমার স্ত্রীসহ আতœগোপন করে দিন কাটাচ্ছি। আদালতে স্বাক্ষী দিতে গেলে আমাকে ক্ষুন করবে বলে আসামীর বিভিন্ন মাধ্যমে হুমকি দিচেছ।