টঙ্গীবাড়ীতে অগ্নিকান্ডে ২ গরু অগ্নিদগ্ধ হয়ে নিহত॥ বসতঘর পুড়ে ছাই

fireব.ম শামীম: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার হাসাইল গ্রামে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় আগুনে দগ্ধ হয়ে ২টি গরু নিহত হয়েছে। এ সময় মতি সেখের বসতঘর পুড়ে ছাই গেছে। পরে এলাকার লোকজন ২ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে সেলো মিশিন দিয়ে পানি ছিটিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে।

জানাগেছে, উপজেলার হাসাইল গ্রামের মনির সেখের গরুর ঘরের পাশে ফেলানো রান্না ঘরের ছাই হতে আগুনের সুত্রপাত হয়। যা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে গোয়াল ঘরের মধ্যে থাকা ২টি গাভী অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়। এ সময় তার বসত ঘরও পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে ৩ লক্ষ টাকা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

============

মুন্সীগঞ্জে পৃথক অগ্নিকাণ্ডে ১৫ বসতঘর-দোকান পুড়ে ছাই

মুন্সীগঞ্জের খাসকান্দি, হাসাইল ও শিলিমপুর বাজারে পৃথক অগ্নিকাণ্ডে ১৫টি বসতঘর, ও দোকান পুড়ে গেছে। এ সময় অগ্নিদগ্ধ হয়ে দু’টি গরু মারা গেছে।

এতে প্রায় ৭১ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্তরা দাবি করেছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা, ১২টা ও ভোর ৪টার দিকে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা ফজলুল হক বাংলানিউজকে জানান, দুপুর ২টার দিকে সদর উপজেলার চরাঞ্চল চরকেওয়ার ইউনিয়নের খাসকান্দি গ্রামে অগ্নিকাণ্ডে মতি বেপারী, মজিবুর বেপারী ও মরণ বেপারীর নয়টি বসতঘর পুড়ে যায়। এতে ৫০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্তরা দাবি করেছেন।

এদিকে, বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে টঙ্গিবাড়ী উপজেলার হাসাইল গ্রামে মতি শেখের রান্না ঘরের চুলার লাকড়ি থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহূর্তের মধ্যেই আগুন ছড়িয়ে পড়লে একটি বসতঘর পুড়ে যায়। এ সময় ওই বাড়ির দু’টি গরুও অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়। এ ঘটনায় এক লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে, ভোর ৪টার দিকে বৈদ্যুতিক শর্ট-সার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়ে জেলার শিলিমপুর বাজারের উজ্জলের সেলুন, আনোয়ার হাওলাদারের মুদি দোকান, মঈনউদ্দিনের জুতা ও আবু সাঈদের খাবার হোটেল সম্পুর্ণ পুড়ে গেছে।

এলাকাবাসী দুই ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে সকাল ৬টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় ২০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ব্যবসায়ীরা দাবি করেছেন।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর