রামনগরে গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ

Rasheda 2মুন্সীগঞ্জে রাশেদা আক্তার (৩৬) নামে এক গৃহবধূকে হত্যার করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার দুপুর ২টার দিকে শহরের সুপার মার্কেট এলাকার আমেনা মোল্লা ক্লিনিকে গৃহবধূর মৃতদেহ ফেলে রেখে পালায় শ্বশুর বাড়ির লোকজন। পরে সেখান থেকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ। এরআগে শনিবার বেলা ১১ টার দিকে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মিরকাদিম পৌরসভার মিরাপাড়াস্থ রামনগর এলাকার শ্বশুর বাড়িতে শ্বশুর বাড়ির লোকজন গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। নিহত রাশেদা আক্তার একই উপজেলার সিপাহীপাড়া এলাকার প্রয়াত দরিদ্র আবুল কাশেম তালুকদারের মেয়ে।

নিহতের ভাই নাদিম হোসেন তালুকদার জানান, গত ১৩ বছর আগে মিরাপাড়ার রামনগর এলাকার ধনাঢ্য প্রয়াত রাজ্জাক বেপারীর বোবা ছেলে শহীদ বেপারীর সঙ্গে তার একমাত্র বোনের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পরেই পারিবারিক অশান্তি দেখা দেয়। দরিদ্র বলে বোনকে বাড়িতে চাকরের মতো কাজ করায়। কথায় কথায় স্বামী শহীদ, শ্বাশুড়ী জাহানারা বেগম, স্বামীর ভাই ফিরোজ আহমেদ খোকন, লিটন ও সুমন মিলে শারীরিক নির্যাতন চালাতে থাকে। পারিবারিক অশান্তি ও নির্যাতনের কারণে কয়েক দফায় বোনকে আমাদের বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।

Rasheda 2

Rasheda 1
নিহত গৃহবধূ রাশেদা আক্তার। ছবি তুলেছেন আল মামুন

তিনি আরো জানান, শনিবার আমার বোনকে হত্যা করে বোনের মামী শ্বাশুড়ি হেনা বেগম আমাদের মোবাইল ফোন করে জানায় আমার বোন ঘরের সিলিং ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। খবর পেয়ে শহরের আমেনা মোল্লা আধুনিক ক্লিনিকে এসে দেখি আমার বোন আর বেঁচে নেই। শ্বশুর বাড়ির ওই স্বজনরা তাকে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্ঠা চালাচ্ছে। এদিকে, শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে হাসপাতাল মর্গে গিয়ে নিহতের শরীরের বিভিন্নস্থানে আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে।

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ শহীদুল ইসলাম বলেন, গৃহবধূকে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

এদিকে, নিহতের স্বামীর ভাই ফিরোজ আহম্মেদ খোকনকে মোবাইল ফোনে কল করা হলে কল গ্রহণ করে জানানো হয়, আমি খোকনের বন্ধু বলছি। খোকন মোবাইল রেখে বাইরে গেছে। আসলে আপনার কথা বলবো আপনি ফোন করেছিলেন।
ওদিকে, নিহত রাশেদা আক্তারের সাদিয়া নামে ৯ বছর বয়সী মেয়ে ও সাফাত নামে ৬ বছর বয়সী ছেলে রয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা

==========

মুন্সীগঞ্জে গৃহবধূ হত্যা !

সদর উপজেলার মিরাপাড়া গ্রামে স্বামীর বাড়িতে রাশেদা আক্তার (৩৬) নামের এক গৃহবধুকে হত্যার অভিযোগ করেছে তার ভাই নাদিম হোসেন। লাশের হাতে, কানের পেছনে ও গালে আঘাতের চিহৃ রয়েছে। স্বামী মো. শহীদ ব্যাপারী (৪০) প্রতিবন্দী হওয়ার সুযোগে পরিবারের অন্যরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে। শনিবার বিকালে লাশ ময়না তদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ মর্গে পাঠানো।

নাদিম হোসেন অভিযোগ করেন, দুই সন্তানের জননীকে নির্যাতন করে হত্যার পর স্বামীর বাড়ির লোকজন আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে। শ্ব্শুরবাড়ির লোকজন কেউ বলছে স্ট্রোক করে, আবার কেউ চলছে বিষ খেয়ে ও কেউ কেউ বলছে ফাঁসি দিয়ে মারা গেছে। তিনি জানান, শাশুড়ি জাহানারা বেগম, দেবর সুমন ও ভাসুর সিরাজ এই নির্যাতনের সাথে জড়িত। এর আগেও শাশুড়ির নির্যাতনের ঘটনায় সালিশ বৈঠকও হয়েছে। প্রতিবন্দী হওয়ায় স্বামী মো. শহীদ ব্যাপারীকে প্রায়াত শ্বশুর নগদ ১০ লাখ টাকা দিয়ে যান। অন্য ভাইরা এই টাকা নিয়ে নেয় লাভ দেবার কথা বলে। কিš‘ মূল টাকা বা লভ্যাংশ কিছুই দিচ্ছে না। এই নিয়ে বিরোধের সৃষ্টি হয়। ঘটনার সময় রাশেদা আক্তারের বড় মেয়ে ৮ম শ্রেণির ছাত্রী সামিয়া আক্তার রিকাবীবাজার বালিকা বিদ্যালয়ে ছিলেন। ৬ বছরের পুত্র ছিল দূরে। বাক প্রতিবন্দী স্বামীও এব্যাপারে কিছুই বোঝাতে পারছেন না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রতিবেশী জানান, রাশেদা আক্তারকে মেঝেতে দেখতে পান।

তবে হাতিমারা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্য মো. মনিরুজ্জামান জানান, তিনি খবর পেয়ে শনিবার বেলা ২টায় শহরের আমেন মোল্লা ক্লিনিকে গিয়ে লাশ জব্দ করে মর্গে পাঠান। রাশেদা আক্তারকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন স্বামীর বাড়ির ভাড়াটিয়া হেনা বেগম। হেনা বেগম পুলিকে জানিয়েছে- শনিবার সকাল ১১টায় ঘরের সিলিং ফ্যানের সাথে ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

সদর উপজেলার সিপাহিপাড়া গ্রামের মৃত আবুল কাশেম তালুকদারের কন্যা রাশেদা আক্তারের ১২ বছর আগে পার্শ্ববর্তী মিরাপাড়া গ্রামের মৃত রাজ্জাক ব্যাপারীর পুত্র মো. শহীদ ব্যাপারীর সাথে বিয়ে হয়।

স্বদেশ

===============