পুলিশকে মারধর করে আসামি ছিনতাই

মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় এক আসামির স্বজনেরা তিন পুলিশকে মারধর করে আসামিকে ছিনিয়ে নিয়ে গেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত শুক্রবার রাতে উপজেলার হোগলাকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। একই দিন রাতে ভবেরচর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. লোকমান হোসেন সরকারকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল সকালে এ খবর শোনার পর অসুস্থ হয়ে মারা গেছেন তাঁর মা কুলসুম বেগম (৯২)।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি হোগলাকান্দি গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে আহসানউল্লাহ ও ধনু মিয়া নামের দুই ব্যক্তির পক্ষের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় ধনু মিয়ার পক্ষের শাহনাজ বেগম বাদী হয়ে প্রতিপক্ষের কয়েকজনকে আসামি করে মামলা করেন।

গত শুক্রবার রাতে গজারিয়া থানার পুলিশের তিন সদস্যের একটি দল আসামিদের গ্রেপ্তার করতে যান। তারা সুমন নামের এক আসামিকে আটক করেন। এরপর সুমনের আত্মীয়স্বজন এএসআই আমিনুল ইসলাম, মো. শাহানূর এবং কনস্টেবল শাকিলকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে সুমনকে ছিনিয়ে নেন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে গজারিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. ফরিদ উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।
এলাকাবাসী ও কুলসুমের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ২৩ মার্চ গজারিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দিন সহিংসতায় বালুয়াকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান এবং ওই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. সামছুদ্দিন প্রধান নিহত হন। ওই ঘটনায় দায়ের করা মামলার আসামি লোকমানকে শুক্রবার রাতে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গ্রেপ্তারের ঘটনাটি শনিবার সকালে জানার পরপরই গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন তাঁর মা কুলসুম বেগম। ঢাকার একটি হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান।

প্রথম আলো