পদ্মা সেতুর আর্থিক প্রস্তাবের সময় বাড়ল

padmaমূল পদ্মা সেতু নির্মাণে আত্মর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোর আর্থিক প্রস্তাব দাখিলের সময় তিন সপ্তাহ বাড়ানো হয়েছে। তিনটি আত্মর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের কারিগরি প্রস্তাব আগেই গ্রহণ করা হয়। এই তিনটি প্রতিষ্ঠানের দু’টি অর্থিক প্রস্তাব দাখিলের সময় বাড়ানোর অনুরোধ করেছিল। এই অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে বৃহষ্পতিবার এই সময়সীমা ২৪ এপ্রিল পর্যšত্ম বাড়ানো হয়।

কর্মকর্তারা জানান, ভারতের ডেলিম এল এ- ুুটি জেভি এবং দক্ষিণ কোরিয়ার স্যামসং সি এ- টি কর্পোরেশন প্রকল্পের সবচেয়ে ব্যয়বহুল অংশ নির্মাণের আর্থিক প্র¯ত্মাব তৈরিতে সময় প্রয়োজন বলে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ করেছিল।

সেতু কর্তৃপক্ষ ২০১৩ সালের ২৫ জুন ১৩৪ কোটি ডলার ব্যয়ে দেশের সর্ববৃহৎ পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য প্রাথমিক যোগ্যতায় চারটি কোম্পানীর প্রতি দরপত্র আহ্বান করেছিল। ৬ জানুয়ারী তিনটি প্রতিষ্ঠান কারিগরি প্র¯ত্মাব দেয়। ওই সময়ও সেপ্টেম্বর থেকে চার বার বাড়ানো হয়। তবে ভিঞ্চি-এইচসিসি জেভি পরে আর কারিগরি প্র¯ত্মাব দেয়নি।

বাকি তিনটি প্রতিষ্ঠানকে ৫ মার্চ চিঠি দিয়ে আর্থিক প্র¯ত্মাব দেয়ার কথা বলে কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি।

চীনের চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানী লিমিটেড সময় বাড়ানোর কোন অনুরোধ করেনি।

এদিকে যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের নির্মাণ কাজ শুরু করতে আর বিলম্ব হতে দিতে চান না। জুনের মধ্যেই এটা শুরু করতে চান তিনি।

বিদেশী অর্থ যোগানদাররা সমর্থন প্রত্যাহার করার পর থেকেই ২৯০ কোটি ডলারের পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প আর্থিক সংকট মোকাবেলা করছে। এর পর যোগাযোগমন্ত্রী বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে সেতু নির্মাণের সময় উল্লেখ করেন।

যে দু’টি প্রতিষ্ঠান আর্থিক প্র¯ত্মাবের সময় বাড়ানোর অনুরোধ করেছে তারা চুড়াšত্ম নিলামে অংশ নেয়ার আগেই সরকারের কাছে লিখিত প্রতিশ্রুতি চায়। কারণ সময় মত পাওনা পরিশোধের ব্যাপারে তাদের সন্দেহ রয়েছে।

একজন কর্মকর্তা বলেন, মানসম্পন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে এ ধরণের নিশ্চয়তা দেয়ার মত চুক্তি হতে পারে। চীনা কোম্পানী অবশ্য এ ধরণের কোন প্রতিশ্রুতি চায়নি। দ্য ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস

আমাদের সময়