প্রার্থীদের প্রচারণায় সরগরম সিরাজদিখান

upzilalogo৩১ মার্চ মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলা নির্বাচন। নির্বাচনে এখন প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা জমে উঠেছে। চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৯ প্রার্থীর নির্ঘুম প্রচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে ১৪ ইউনিয়নের প্রত্যন্ত এলাকা। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের পক্ষে পথসভা, গণসংযোগ, মাইকিং, পোস্টার, লিফলেটসহ নানামুখী প্রচারণায় সরগরম রয়েছে জনপদ। সকাল থেকে গভীর রাত অবধি প্রার্থীরা ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে নানা প্রতিশ্র“তির বাণী শুনিয়ে ভোট চাইছেন। এবারের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে তিনজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ নির্বাচনকে ঘিরে চায়ের কাপে উঠেছে নির্বাচনী ঝড়। চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ।

চেয়ারম্যান পদে শেষ হাসি কে হাসবেন তা দেখার অপেক্ষায় রয়েছেন উপজেলাবাসী। ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, অতীতে জাতীয় সংসদ, উপজেলা পরিষদ ও ইউনিয়ন পরিষদসহ বিভিন্ন নির্বাচনে প্রার্থীরা নানা উন্নয়নের কথা বলে ক্ষমতায় গেলেও সাধারণ জনগণের কোনো উপকারে আসেননি ওইসব জনপ্রতিনিধি। তাই এবারের উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থীদের মন ভোলানো কথায় ভুল করবেন না জনগণ। ভোটাররা চিন্তাভাবনা করে যোগ্য প্রার্থীকেই ভোট দেবেন। ভোটের মাঠে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের ত্রিমুখী হাড্ডাহাড্ডি প্রতিদ্বন্দ্বিতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

তবে ভোটাররা এখনও ঠিক করতে পারেননি, কাকে মূল্যবান ভোটটি দেবেন। চেয়ারম্যান পদে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অওয়ামী লীগ সভাপতি মহিউদ্দিন আহম্মেদ (কাপ-পিরিচ) তার পদটি ধরে রাখতে নানা নির্বাচনী কৌশল চালিয়ে যাচ্ছেন। তার সমর্থকরা ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করে বেড়াচ্ছেন। তার বিজয়ের ব্যাপারেও আশাবাদী কর্মীরা। বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত এ উপজেলায় উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল কুদ্দুস ধীরণের (দোয়াত-কলম) পক্ষে মাঠে নেমেছেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক উপপ্রধানমন্ত্রী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন। এদিকে অপর প্রার্থী সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল সালাম সরকারের রয়েছে ব্যাপক পরিচিতি। তিনি এবার সব দলের লোকজনকে কৌশলে সঙ্গে নিয়ে ভোটারদের বাড়ি বাড়ি ভোট প্রার্থনা করছেন।

অন্যদিকে ভাইস চেয়ারম্যান পদে মুন্সীগঞ্জ জেলা জামায়াতের সাধারণ সম্পাদক আবদুল আউয়াল জেহাদি (তালা) রয়েছেন এগিয়ে। রাজানগর ও ইছাপুরা ইউনিয়নে তার রয়েছে আলাদা ভোট ব্যাংক। যে কারণে তিনি ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচন করছেন। আওয়ামী লীগের প্রার্থী সিরাজদিখান উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আলীগ সভাপতি মহিউদ্দিন আহম্মেদের (কাপ-পিরিচ) পক্ষে নেমেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য বাবু সুকুমার রঞ্জন ঘোষ।

অপরদিকে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল কুদ্দুস ধীরণের এলাকায় ব্যাপক পরিচিতি রয়েছে। তার সমর্থকরা ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করে বেড়াচ্ছেন। তার বিজয়ের ব্যাপারেও আশাবাদী কর্মীরা। ভাইস চেয়ারম্যান পদের তিন প্রার্থী হলেন- মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবুল কাশেম (টিউবওয়েল), মুন্সীগঞ্জ জেলা জামায়াত ইসলামী সাধারণ সম্পাদক আবদুল আউয়াল জেহাদি (তালা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী নাফিছ খান (চশমা)। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিন প্রার্থী হলেন- আওয়ামী লীগ সমর্থিত হেলেনা ইয়াসমিন (কলস), বিএনপি সমর্থিত শীলা কামাল (প্রজাপতি) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ফরিদা ইয়াছমিন (হাঁস)।

সিরাজদিখান উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৮৯ হাজার ৫১০ জন। এদের মধ্যে ৯৫ হাজার ৬১৪ জন পুরুষ ও ৯৩ হাজার ৮৯৬ জন মহিলা। ভোট কেন্দ্র রয়েছে ৭৩টি এবং ভোট কক্ষের সংখ্যা ৪২৩টি। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সম্পন্ন করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। নির্বাচন-পূর্ব সময় ও নির্বাচনের দিন যাতে আচরণবিধি লংঘন না হয়, সে বিষয়ে প্রশাসন সজাগ রয়েছে বলে জানালেন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ইউএনও মোঃ আবুল কাশেম।

যুগান্তর