অসম প্রেমের কারণে তিন ঘন্টার ব্যবধানে মা-মেয়ের আত্মহত্যা!

suicideআরিফ হোসেন: শ্রীনগরে মেয়ের অসম প্রেমের কারণে তিন ঘন্টার ব্যবধানে বিষপান করে আত্মহত্যা করেছে মা ও মেয়ে। বুধবার দুপুর ১২ টার দিকে ঢাকার মিডফোর্ট হাসপাতালে মা মনিমালা (৪০) ও তিনটার দিকে মেয়ে শান্তা (১৮) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করে।

বুধবার সকাল আটটার দিকে শ্রীনগর উপজেলার পানিয়া গ্রামের মা মনিমালার সাথে মেয়ে শান্তার অসম প্রেম নিয়ে ঝগড়া হয়। ঝগড়ার এক পর্যায়ে সকাল সাড়ে নয়টার দিকে মনিমালা বিষ খেয়ে মৃত্যু যন্ত্রনায় ছটফট করতে থাকে। তাকে দ্রুত সিরাজদিখান স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা অবস্থা বেগতিক দেখে তাকে মিডফোর্ট হাসপাতালে প্রেরণ করে। মিডফোর্ট হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় দুপুর বারটার দিকে মনিমালার মৃত্যু হয়। মায়ের মৃত্যুর সংবাদ শুনে মেয়ে শান্তাও বিষ পান করে। দুপুর একটার দিকে তাকে আশংকা জনক অবস্থায় প্রথমে শ্রীনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে মিডফোর্ট হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুপুর তিনটার দিকে শান্তার মৃত্যু হয়।

স্থানীয়রা জানায়, পানিয়া গ্রামের সামসুল হক চৌকিদারের ছেলে আলামিন (২৫) বিয়ের প্রোলভন দেখিয়ে তার চাচাতো ভাই জহির উদ্দিনের মেয়ে শান্তা (১৮) এর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে। বেশ কিছুদিন ধরে শান্তা আলামিনকে বিয়ের জন্য চাপ দিয়ে আসছিল। গত সোমবার আলামিন শান্তাকে ভাতিজি দাবী করে প্রেমের বিষয়টি অস্বীকার করে এবং তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায়। এনিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। মঙ্গলবার রাতে আলামিনের পরিবার শান্তার পরিবারের সদস্যদের মারধর করতে আসে।

আলামিনের সাথে শান্তার সম্পর্ক ও উল্টো তাদের উপর জুলুম অত্যাচার নিয়ে গত মঙ্গলবার রাতে শান্তার সাথে তার মা মনিমালার (৪০) বাগবিতন্ডা হয়। বুধবার সকালে মনিমালা মেয়ের উপর অভিমান করে বিষের ট্যাবলেট খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। মা ও মেয়ের মৃত্যুতে ঐ এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।