পদ্মায় গোসল করতে এসে পানিতে ডুবে মৃত্যু ১ : আহত ১

nipuPadmaশেখ সাইদুর রহমান টুটুল: শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৪টায় লৌহজংয়ের ঘোরাদৌড় এলাকায় পদ্মা নদীতে গোসল করতে এসে পানিতে ডুবে একজনের মুত্যু হয় অপর এক জন কে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মিটফোট হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

জানাযায়, শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টায় ঢাকার জুরাইন মুরাদপুর এলাকা থেকে দুই বন্ধু হাসিনুর রহমান নিপু (৩৪) ও সুমন(৩২) ঘুরতে আসে লৌহজংয়ের পদ্মা নদীতে। তারা লৌহজংয়ের ঘোরাদৌর বাজার সংলগ্ন পদ্মা নদীতে গোসল করতে নামলে প্রবল স্রো‌তের টানে দুজনেই ডুবে যায় এর মধ্যে আসে পাশে থাকা মাছ ধরার ট্রলার এসে সুমন কে উদ্বার করলে ও নিপু কে খুজে পাওয়া যায়নি।
nipuPadma
আড়াই ঘন্টা পর সন্ধ্যা ৭টায় নদীতে জাল ফেলে নিপুর লাশ উদ্বার করা হয়। জানাযায় নিপুর গ্রামের বাড়ি লৌহজংয়ের কাজির পাগলা গ্রামে তবে তারা সবাই ঢাকার জুরাইন এলাকার মুরাদপুরে বসবাস করে। নিপু ঢাকার কমলাপুরে একটি প্রাইভেট ফার্মে চাকুরী করত বলে জানান তার পরিবার।

বাংলাপোষ্ট
=============

পদ্মায় ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং থানা সংলগ্ন পদ্মা নদীতে শুক্রবার সন্ধ্যায় এক ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সন্ধ্যা ৬ টার দিকে ব্যবসায়ী হাসানুর রহমান ওরফে নিপু খানের (৩৩) লাশ উদ্ধার করে। বন্ধুর সঙ্গে গোসল করতে নেমে তিনি পদ্মাবক্ষে নিখোঁজ হন। তিনি লৌহজং উপজেলার কাজীরপাগলা গ্রামের আব্দুল মতিন খানের ছেলে। রাজধানীর জুরাইনের ব্যবসা করেন।

লৌহজং থানার ওসি আবুল কালাম জানান, বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে এক বন্ধুর সঙ্গে পদ্মায় গোসল নেমে স্রোতের তোড়ে ভেসে যান ওই ব্যবসায়ী। তিনি সাঁতার জানতেন না।

ওসি আরো জানান, ব্যবসায়ীর বাড়িতে ঢাকার জুরাইন থেকে মো: সুমন নামে এক বন্ধু বেড়াতে আসেন। ওই বন্ধুকে সঙ্গে করে বিকেলে পদ্মায় গোসল করতে যান তিনি। সঙ্গীয় বন্ধু সুমন অক্ষত রয়েছেন।

বিডি টুয়েন্টিফোর
=========

পদ্মায় গোসল করতে গিয়ে ডুবে গেলেন দু’বন্ধু

শুক্রবার লৌহজং উপজেলা সদরের ঘোড়দৌড়ের কাছে পদ্মার চরে বেড়াতে এসে ঢাকার তরুন ব্যবসায়ী হাসানুর রহমান নিপু (৩০) পদ্মায় ডুবে মারা গেছেন। তার সঙ্গী ব্যবসায়ী মো. সুমনকে (২৫) মূমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। নিহত নিপু কাজির পাগলা গ্রামের মৃত আব্দুল মতিন হিরুর পুত্র। লৌহজং থানার ওসি আবুল কালাম রাতে জানান, এই দু’বন্ধু ঢাকার বাসিন্দা। স্থানীয় কাজীর পাগলায় একটি অনুষ্ঠানে যোগদান করে গাড়ি নিয়ে লৌহজং থানা সংলগ্ন পদ্মার নতুন চরে বিকালে বেড়াতে আসে তরুন দু’ব্যবসায়ী। তাদের সাথে এক শিশু ছিল।

শিশুটিকে পাশে দাঁড় করিয়ে দু’বন্ধু পদ্মা নদীতে গোসল করতে নামে। এক পর্য়ায়ে তারা তালিয়ে যাচ্ছিল। এই সময় শিশুটি চিৎকার করলে জেলে ও আশপাশের লোকজন ছুটে আসে। সুমনকে মূমূর্ষু অবস্থায় তাৎক্ষনিক উদ্ধার করেও নিপুকে রক্ষা করা যায়নি। পরে জাল ফেলে অনেক চেষ্টার পর নিপুর মৃত দেহ উদ্ধার করা হয়। তারা সাঁতার জানতো না। এই রিপোর্ট লেখার সময় পরিবারের বুক ফাটা আর্তনাতে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারনা হয়। ছয় ভাই এক বোনের মধ্যে নিপু তৃতীয়। সে অবিবাহিত।

স্বদেশ