এই কমনসেন্সটার নামই ‘চেতনা’: তাহসান

tahsan0307bটি২০ বিশ্বকাপ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান নিয়ে সবখানে চলছে তুমুল আলোচনা। শিল্পী তাহসান তার নিজের ফ্যান পেজে টি-২০ বিশ্বকাপ উদ্বোধনী নিয়ে মন্তব্য করেন “এমন এক দেশে জন্মেছি যে দেশে কেউ লিজেন্ড হয় না। আজ আবার তা আমরা প্রমান করলাম।”

তার একটু পরেই তুলে ধরেন তার সমর্থন করা আরেকটি মতামত। যা নিয়ে শুরু হয়েছে তোলপাড়। হচ্ছে আলোচনা। শিল্পী তাহসানের মন্তব্যকে সমর্থনও করেছে লাখ লাখ মানুষ। মন্তব্যটি ছিল এমন ‘কনসার্টের আয়োজকরা, যেভাবে আমাদের দেশের সংগীত হিরোদের ট্রিট করছে, তাতে আমি ক্ষুব্ধ;

* মেইন সাউন্ড ব্যবহার করতে দিচ্ছে না… আলাদা সাউন্ড দেওয়া হয়েছে
* স্টেজে উঠে রিহার্সাল করতে দেয়নি
* বাংলাদেশের আর্টিস্টদের জন্য আলাদা সাধারণ গ্রীন রুম… যা নন এসি.
* কোথাও কোনো কমিউনিকেশনে তাদের নাম ব্যবহার করা হয় নাই
* মাইলসকে মঞ্চে উঠতে দেয়া হয়নি।

আচ্ছা… ধরেন, আজকে অনুষ্ঠানটা ইন্ডিয়াতে হচ্ছে… অর্গানাইজার ইন্ডিয়ান… এবং, ইন্টারন্যাশনাল আর্টিস্ট হিসেবে এসেছে পিংক-ফ্লয়েড

অবশ্যই পিঙ্ক-ফ্লয়েড, এ আর রহমানের থেকে এগিয়ে… কিন্তু আমি চোখ বন্ধ করে বলতে পারি, অর্গানাইজাররা সেই অনুষ্ঠানে তাদের এ আর রহমানকে যেটুকু হাইলাইট করবে, তার থেকে খুব বেশী পরিমান কিন্তু পিংক-ফ্লয়েডকে করবে না

…এই কমন সেন্সটার নামই ‘চেতনা’

আফসোস… আমরা চেতনা চেতনা করি; কিন্তু বিষয়টা আসলে কি, তাই বুঝি না

পয়েন্টটা সিম্পল; “অবশ্যই গুনীর কদর করা উচিত… কিন্তু নিজেদেরকে উপেক্ষিত রেখে, উহু অবশ্যই না”

তার একটু পরেই করেন আরেকটি মšত্মব্য। বিশ্বকাপ নিয়ে তাহসানের ২য় মšত্মব্যটিও সরাসরি তুলে ধরা হল।

‘অনেক দিন আগের কথা। আমার এক ভাতিজা নতুন এক হিন্দী সিনেমার গান গাইছিলো। কথাগুলো এমনঃ

“ফির ভি দিল হেয় হিন্দু¯ত্মানি”।
আমি বকা দিয়ে বলি, তুই বাংলাদেশী বাঙ্গালী হয়ে
আমাকে শেষ করতে না দিয়ে ও বললঃ
“আমার দেশে এ আর রহমান আছে? সাহরুখ খান আছে? টেন্ডুল্কার আছে?”
উত্তর দিতে পারিনি।
আজ চেষ্টা করব।

প্রতিভার মাপে হয়তো আমরা অনেক ক্ষুদ্র। কিন্তু যতটুকু প্রতিভা এ দেশে আছে তার মর্যাদা থাকলে হয়তো প্রতিভার শিখরে এদেশের কেউ থাকতে পারতো।

আমাদের সময়