গোপপাড়া খালে সড়ক ও ড্রেন নির্মানে মিরকাদিমের মেয়রকে হাইকোর্টে তলব

khalHighCourt1উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মিরকাদিমের গোপপাড়া খাল ভরাট করে ড্রেন ও সড়ক নির্মান করার কারনে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং মিরকাদিম পৌরসভার মেয়রকে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দেয়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করেছেন।

এর আগে ৩০ জানুয়ারী ২০১২ সালে হাইকোর্টের অর্ডার নং ১৩/১২ মহামান্য উচ্চ আদালত সূয়োমোটো রুল জারী করেন। তখন চারটি খালকে অবৈধ দখলদারদের হাত থেকে খাল উদ্ধার করে পানি প্রবাহের ব্যবস্থার জন্য নির্দেশনা দেন। সে মতে মুন্সীগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তর ৫৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন এবং অবৈধ স্থাপনা ভেঙ্গে দেন। সে রুল চলাকালীন সময়ে মিরকাদিম পৌরসভার মেয়র শহিদুল ইসলাম শাহিন খালের ওপর ড্রেন এবং সড়ক নির্মানের প্রকল্প গ্রহন করেন।

তখন জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদলকে দিয়ে কৌশলে উদ্বোধন করান। কিন্তু উচ্চ আদালতের রিট আছে বলে নতুন এ জেলা প্রশাসক মহোদয় অবগত ছিলেন না। শুধু মাত্র মেয়র শাহিন জেলা প্রশাসককে উচ্চ আদালতের বিষয়ে কিছু না জানিয়ে এহেন কর্মকান্ড পরিচালনা করেন। তখন দেড় কাটি টাকা প্রকল্পের মধ্যে তিন থেকে পাঁচ লাখ টাকার কাজ শেষ হয়েছে।
khalHighCourt1

khalHighCourt2
বিষয়টি সাপ্তাহিক মুন্সীগঞ্জের বাণী পত্রিকা ফলাও করে প্রচার করলে তখনই উক্ত স্থাপনা ভাঙ্গার নির্দেশ দেন জেলা প্রশাসক মহোদয়। কিন্তু খালের উপর থেকে স্থাপনা সরালেও সুনীল চন্দ্র দে নামে জনৈক ব্যক্তি জনস্বার্থে উচ্চ আদালতের রিট পিটিশন ৭৭১/২০১৪ করলে উচ্চ আদালত সংশ্লিষ্টদেরকে শোকজ করেন এবং চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দেয়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন।

মুন্সিগঞ্জের বাণী