পুলিশ-পিকেটার সংঘর্ষ: ২৮ নেতাকর্মী আসামি

bnp mamlaমুন্সীগঞ্জে সদর উপজেলা নির্বাচনে ভোট ডাকাতির প্রতিবাদে বিএনপির ডাকা হরতালে পুলিশের সাথে পিকেটারদের সংঘর্ষের ঘটনায় বিএনপির ২৮ নেতাকর্মীকে আসামি করে পুলিশ মামলা দায়ের করেছেন। সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শহীদুল ইসলাম মুন্সীগঞ্জ বার্তা ডট কমকে জানান, পুলিশের ওপর হামলা, সরকারি কাজে বাঁধা ও ককটেল বিস্ফোরণের অভিযোগ এনে শনিবার রাত ৮টার দিকে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের হাতিমারা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মনিরুজ্জামান বাদী হয়ে সদর থানায় এ মামলা দায়ের করেন। মামলায় নির্বাচন বয়কট করা চেয়ারম্যান প্রার্থী, বর্তমান রামপাল ইউপি চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন পুস্তি, গুলিবিদ্ধ তার ছোট ভাই সদর উপজেলা যুবদলের সভাপতি মোহাম্মদ হোসেন পুস্তি, সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান ও রামপাল ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল মাদবরসহ ২৮জনকে এজাহারনামীয় আসামি করা হয়েছে।

জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জে সদর উপজেলা নির্বাচনে ভোট ডাকাতির প্রতিবাদে বিএনপির ডাকা হরতালে শনিবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে ঢাকা-টঙ্গীবাড়ি-মুন্সীগঞ্জ সড়কের রামপাল ইউনিয়নের সিপাহীপাড়া এলাকায় পুলিশের সাথে পিকেটারদের সংঘর্ষে সদর উপজেলা যুবদলের সভাপতিসহ ১০ নেতাকর্মী গুলিবিদ্ধ হয়। এছাড়া, ২ পুলিশ সদস্যসহ আরো আহত হয় ৭ নেতাকর্মী। আহতদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ যুবদল নেতা মোহাম্মদ হোসেন পুস্তি, যুবদল নেতা নূর হোসেন পুস্তি, ফারুক হোসেন, আব্দুল লতিফ, মাসুদ শেখ, মো. কামাল গাজীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। এছাড়া অপর আহত ইয়ামিন দেওয়ান (২২), রানা পুস্তি (২৮), রাসেল বেপারী (৩০), জিকো বেপারী (৩৫)সহ অপর আহতদের টঙ্গীবাড়িসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সংঘর্ষকালে রামপাল ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল মাদবরকে পুলিশ টেনে হিচড়ে মারধর ও লাঞ্চিত করে।

উল্লেখ্য, গত ২৭ ফেব্রুয়ারি মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপি, এজেন্টদের বের করে দেওয়া ও ভোট কেন্দ্র দখল করে ভোট ডাকাতি অভিযোগ এনে বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মোশারফ হোসেন পুস্তি এবং বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী রুবী আক্তার ভোট বর্জন করে পুনরায় নির্বাচন দাবি করে শনিবার মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা এলাকায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল আহ্বান করে।

মুন্সীগঞ্জবার্তা