রামপালে আ’লীগ-বিএনপি সংঘর্ষ, শনিবার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল

upzilalogoমুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার রামপাল এনবিএম উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র দখলকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে সাংবাদিকসহ ১৫ জন আহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ পাঁচ রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে।

আহতদের মধ্যে জিটিভির স্টাফ রিপোর্টার শামিম আহমদে (৩২), ক্যামেরাম্যান সাজু আহমেদ (৪৫) ও বিজয় টিভির জেলা প্রতিনিধি আমিরুল ইসলাম নয়নকে (৪৩) স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

তাৎক্ষণিকভাবে বাকিদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি। তাদের সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

সংঘর্ষ চলাকালে ঘটনাস্থল থেকে অজ্ঞাতপরিচয়ের তিন জনকে আটক করা হয়।

এদিকে, ভোটকেন্দ্র দখল করে ভোট ছিনতাই, প্রশাসনের পক্ষপাত আচারণ ও এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগে নির্বাচন বর্জন করে শনিবার মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দিয়েছে বিএনপি।

দুপুরে শহরের উপকণ্ঠ মুক্তারপুর এলাকায় অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলন শেষে মুন্সীগঞ্জ শহর বিএনপির সভাপতি ও পৌর মেয়র একেএম ইরাদত মানু নির্বাচন বর্জন ও শনিবার সকাল-সন্ধ্যা হরতালের বিষয়টি বাংলানিউজকে নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়রা জানায়, দুপুরে সদর উপজেলার রামপাল এনবিএম উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র দখলের চেষ্টা চালায় আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আনিছুজ্জামান আনিছ ও তার সমর্থকরা।

এসময় বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী মোশারফ হোসেন পুস্তি ও তার সমর্থকরা বাধা দিলে উভয় প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। এতে সাংবাদিকসহ ১৫ জন আহত হয়।

সংঘর্ষের পর সংবাদ সম্মেলন করে শনিবার সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দেয় বিএনপি।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহীদুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর