শ্রীনগর জমে উঠেছে ত্রিমুখী লড়াই

upzilalogoআরিফ হোসেন: শ্রীনগরে উপজেলা নির্বাচনে ত্রিমুখী লড়াই জমে উঠেছে। তবে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপির একাধিক প্রার্থী থাকায় এর খেসারত দুদলকেই দিতে হতে পারে।

চেয়ারম্যান পদে বিএনপি থেকে একক প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব মমীন আলী (দোয়াত-কলম)। একই পদে আওয়ামী লীগ থেকে প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান উপজেলা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সেলিম আহমেদ ভূইয়া (আনারস)। কেন্দ্রীয় যুবলীগ উপ কমিটির সহ সম্পাদক জাকির হোসেন (ঘোড়া) প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ থেকে একক প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক শেখ মো ঃ আলমগীর (উড়ো জাহাজ)। এই পদে জেলা বিএনপির যুগ্ন সম্পাদক আলহাজ্ব সেলিম হোসেন খান ( বৈদ্যুতিক বাল্ব) ও জেলা সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আওলাদ হোসেন উজ্জল (তালা) প্রতীক নিয়ে দুজনই নিজেদের বিএনপির মনোনীত প্রার্থী হিসাবে দাবী করছেণ।
01.momin ali

02.Jakir

02 selim ahamed

03 aowlad hossain ujjal

04 shekh alomgir

05 selim khan

07.jahanara

06.asiya akter
মহিলা ভাইসচেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন আওয়ামী লীগের আছিয়া আক্তার রুমু (কলস) ও বিএনপির জাহানারা বেগম (হাস) প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন।

২৭ ফেব্র“য়ারীর নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রার্থীদের সবাই উপজেলার এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত চষে বেড়াচ্ছেন। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত প্রত্যন্ত অঞ্চলের মসজিদ, মন্দির, চায়ের দোকানে চালাচ্ছেন প্রচার-প্রচারণা। শেষ মূহুর্তে সবাই ব্যাস্ত ভোটারদের মন গলাতে। অপরদিকে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ঘটছে নানা রকম অপ্রীতিকর ঘটনা। দলীয় প্রভাব ও সমর্থকদের দ্বন্দে কেউ কাউকে ছাড় দিতে রাজি নয়।

উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়ন ঘুরে নেতা, কমী, সমর্থক ও সাধারণ ভোটারদের সাথে আলাপ করে পাওয়া গেছে ভিন্ন ভিন্ন চিত্র।

শ্রীনগর উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ১,৮৯,৭৩৩। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ৯৫,৪০৮ নারী ভোটার ৯৪,০৬৫ জন। রাজনৈতিক দিক থেকে অতীতে উপজেলাটি বিএনপির ঘাটি হিসাবে পরিচিত হলে গত নবম ও দশম সংসদ নির্বাচনে এখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জয় লাভ করে।

তবে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মমীন আলী বিএনপির একক প্রার্থী হওয়ার কারণে তিনি অনেকটাই সুবিধা জনক অবস্থানে রয়েছেন বলে মনে করছেন ভোটাররা। অপরদিকে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী সেলিম আহমেদ ভূইয়া গত নির্বাচনে জয়ী হওয়ায় তার নেতা কর্মীরা পুরনো ইমেজ ধরে রাখার জন্য আদা-জল খেয়ে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছন। এদুজনের বাইরে জাকির হোসেনও তার প্রচারণায় ব্যস্ত রয়েছেন। সম্প্রতি নির্বাচনী প্রচারণার সময় তাকে মারধরের ঘটনা ভোটারদের একটি অংশকে তার উপর সহানুভুতিশীল করে তুলেছে। এক্ষেত্রে জাকির হোসেন ব্যাক্তিগত উমেজ ও আওয়ামী লীগ-বিএনপির পদ বঞ্চিতদের কাজে লাগিয়ে প্রতিদ্বন্দিতা গড়ে তুলতে পারেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে চিত্র অনেকটা উল্টো। বিএনপির একটি সূত্র রুহুল কবীর রিজভীর বরাত দিয়ে জানায়, ভাইস চেয়ারম্যান পদে খালেদা জিয়া বিএনপির প্রাথী হিাসবে আওলাদ হোসেন উজ্জলকে মনোনীত করেছেন। সূত্রটি দাবী করে উপজেলা বিএনপির উপরও এরকম নির্দেশনা রয়েছে। অপরদিকে আলহাজ্ব সেলিম হোসেন খানের প্রচারনায় নেমেছেন কেন্দ্রিয় বিএনপির সহ-সভাপতি শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন। তৃণমূল বিএনপি কোন দিকে যায় তা-ই দেখার বিষয়। এক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী শেখ মো ঃ আলমগীর বিএনপির কোন্দল ও নিজের ক্লিন ইমেজ কাজে লাগাতে পারলে লড়াই জমে উঠবে। তবে শেষ হাসি কে হাসবে তা বলা মুশকিল।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের আছিয়া আক্তার রুমু ও বিএনপির জাহানারা বেগম মাঠ চষে রেড়াচ্ছেন। এই পদে দলীয় সমর্থনের পাশাপাশি জয়ী হওয়ার বিষয়টি ব্যক্তিগত ইমেজের উপর অনেকটাই নির্ভর করছে বলে সাধারন ভোটাররা মনে করছেন ।