মুন্সীগঞ্জে জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োজন মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্র

drugদেশের অন্যান্য অঞ্চলের মতো মুন্সীগঞ্জের যুবসমাজ একাংশ মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছে। সামাজিক, অর্থনৈতিক ও পারিবারিক কারনে অনেক যুবকই মাদকের ভয়াল থাবার দিকে হাত বাড়াচ্ছে।ক্রমাগত মাদকাসক্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেলেও মুন্সীগঞ্জ জেলার বিপুলসংখ্যক মাদকাসক্ত সঠিক চিকিৎসাসেবা থেকে সম্পূর্ণ বঞ্চিত। কারন এ জেলায় নেই কোন মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্র। এ জন্য সরকারি পদক্ষেপের অভাবকে দায়ী করেছেন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর সূত্রমতে, দেশে মাদকাসক্তের সংখ্যা আনুমানিক ৪০ লাখ। মাদকাসক্তের সংখ্যা প্রতি বছরই আশঙ্কাজনকহারে বাড়ছে।


মুন্সগঞ্জ জেলার বাইরে গিয়ে অনেক মাদকাসক্ত রোগীরা চিকিৎসা নিলেও নানা কারণে বেশির ভাগই চিকিৎসার মাঝপথে ইতি টানতে বাধ্য হন। আবার অনেকে রাজধানীতে বিভিন্ন প্রাইভেট ক্লিনিক বা হাসপাতালে যান।

প্রকৃতপক্ষে মাদকাসক্তদের চিকিৎসা করার মতো সামর্থ্য ওইসব ক্লিনিক বা হাসপাতালের নেই। তারপরও অর্থের লোভে ওইসব প্রতিষ্ঠান নামকাওয়াস্তে চিকিৎসা করে থাকে। এতে মাদকাসক্তরা আরো ক্ষতিগ্রস্ত হন।
drug
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ বলেন, সবচেয়ে ভালো হয় মাদকাসক্তরা যদি নিজ অঞ্চলের চিকিৎসা গ্রহণ করতে পারে। কারণ মাদকাসক্তকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে অনেক সময় লাগে। তা ছাড়া দীর্ঘমেয়াদি চিকিৎসা গ্রহণ করতে হয়। অন্য অঞ্চলে গিয়ে চিকিৎসা নিলে অনেক অর্থ ব্যয় হয়, যা অনেক মাদকাসক্তের পরিবারের পক্ষে সম্ভব নয়।

মুন্সীগঞ্জের সচেতন মহলের মতে সরকারীভাবে না হলেও বেসরকারি পর্যায়ে মুন্সীগঞ্জে একটি মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্র স্থাপন করা এখন জরুরী হয়ে পড়েছে।

মুন্সিগঞ্জটাইমস