সাংবাদিকের সম্পত্তি আত্মসাৎ করার প্রচেষ্টা ব্যর্থ

courtউচ্চ আদালতে আপিল খারিজ
মুন্সীগঞ্জে ভুয়া মালিক ও ক্রেতা সেজে সাংবাদিকের সম্পত্তি দখলেরর প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। নিম্ন আদালতে দায়েরকৃত মামলায় ভুয়া বিক্রেতাকে হাজির হওয়ার সমনজারির বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিলের আবেদন খারিজ ও নিম্ন আদালতের আদেশ বহাল রাখায় এ ঘটনা ঘটেছে।


বিবরণে জানা যায়, ৭৭ নম্বর মুন্সীগঞ্জ মৌজার সিএস ২৫ খতিয়ানের ৯২৩ দাগ ও এসএ ৩৬৯ খতিযানের ১৯০০ দাগ এবং আরএস ২৮৮ খতিয়ানের ২৫৯২ দাগের ১ (শতাংশ) ভিটা-বাড়ি বিগত ৬০ বছর ধরে দখলদার ও ভোগ স্বত্ববান অধিকারী মৃত আবদুর রহমানের মৃত্যুর পর ওয়ারিশ সূত্রে মালিক হয়ে তার ২ কন্যা আক্তার ভানু ও তারা ভানু ভোগ দখল করে আসছেন। তাদের অজ্ঞতার সুযোগে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার দক্ষিণ ইসলামপুর গ্রামের মৃত. সোনা মিয়ার পুত্র ও ভুয়া দলিলের মালিক সাইদুর রশিদ ও ভুয়া মালিক আলিমউদ্দিন হাজির প্রকৃত নাম কবিরউদ্দিন সরদার। তারা পরস্পর আপন ভায়রা। কবির উদ্দিন সরদার পিতা মৃত. সালাউদ্দিন সরদার, সাং- বাবুরাইল থানা ও জেলা নারায়ণগঞ্জকে উক্ত ভূমির ভুয়া মালিক সাজিয়ে একটি জাল দলিল তৈরি করে (যার দলিল নং ৫৪৯০ ও রেজি: তাং- ২৭/১০/২০০৮। ওই ভূমির মূল মালিক সিএস, এসএ, আরএস, পর্চা অনুযায়ী আলীমুদ্দিন হাজী (পিতা মৃত. করিম উদ্দিন হাজী, সাং- কোর্ট গাঁও, থানা ও জেলা মুন্সীগঞ্জ), যার বর্তমান বয়স সিএস পর্চা অনুযায়ী কমপক্ষে ১২৫ বছরের ঊধর্ে্ব হওয়া উচিত বলে মনে করেন আইন বিশেষজ্ঞরা। অথচ গত ২৭/১০/২০০৮ রেজি : কৃত ৫৪৯০ নম্বর দলিলে বিক্রেতার বয়স উল্লেখ করা হয় মাত্র ৬৫ বছর।

বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পরে উক্ত ভিটা বাড়ির ভোগদখলকারী আক্তার ভানুর পুত্র দৈনিক সংবাদের মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি মাহাবুব আলম লিটন খোঁজখবর নিয়ে জানতে পারেন যে, উক্ত কবির উদ্দিন সরদারের জাতীয় পরিচয় পত্র নং ৬৭১২৬২০১৯৩৮১ তার জন্ম তারিখ ১৫/০১/১৯৬৪ বয়স মাত্র (৪৮) এ বিষয়ে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলে এলাকায় তোলপাড় শুরু হলে উক্ত সাইদুর রশিদ গং কৌশলে সাবরেজিস্ট্রি অফিসের লোকজনকে হাত করে দলিলের পূর্বের (আপন ভায়রার) ছবিটি সরিযে ফেলে সেখানে অপর একজন বয়স্ক ব্যক্তির ছবি লাগিয়ে দেন। পরে এ বিষয়ে উক্ত ভিটাবাড়ি বর্তমান ভোগ দখলকারী আক্তার ভানু ও তারা ভানু দুই বোন গত ০৮/০৪/২০০৯ মুন্সীগঞ্জ সদর দেওয়ানি আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। গত ০৪/০১/২০১২ মা আক্তার ভানু ও খালা তারা ভানুর পক্ষ থেকে পাওয়ার অব অ্যাটর্নি প্রাপ্ত হয়ে সাংবাদিক মাহাবুুব আলম লিটন মামলাটি পরিচালনা করে আসছেন।

সংবাদ