আর কত বার পেটালে থানায় মামলা নিবে টঙ্গিবাড়ি থানা-পুলিশ

Policeশেখ মো.রতন: আর কত বার পেটালে মামলা নিবে মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ি পুলিশ”-মঙ্গলবার সন্ধ্যা-রাতে মুন্সীগঞ্জ প্রেসকাবে এ কথা গুলো বলেন টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বেতকা বাজারের সাদুল-সিয়াম মেডিকেল সেন্টারের মালিক ফ্রেজিয়া সিকদার (৩৬)। “পাওনা টাকা চাওয়ায় ওরা আমাকে পর-পর ৩ বার পিটিয়েছে। আমাকে কত বার পেটাবে সন্ত্রাসীরা।


চতুর্থ বারের মতো প্রতিপক্ষের হামলার ভয়ে বাড়ি-ঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন এই ওষুধ ব্যবসায়ী। তিনি টঙ্গিবাড়ীর বেতকা গ্রামের সাদুল সিকদারের ছেলে। বর্তমানে শহরের কোর্টগাঁও এলাকায় বোনের বাড়িতে আশ্রয়ে আছেন তিনি। ভুক্তভোগী ফ্রেজিয়া জানান, সম্প্রতি একই গ্রামের ২ সহোদর জুয়েল তালুকদার ও সোহেল তালুকদারের সঙ্গে যৌথ ভাবে বালু ভরাটের কাজ করেন তিনি। কাজ শেষে বিল উত্তোলন করে তার সাড়ে ৩ লাখ টাকা আতœসাত করে ২ সহোদর ভাই। ওই টাকা চাওয়ায় গত ২২ জানুয়ারি রাতে টঙ্গিবাড়ীর পাইটাল পাড়া সড়কে তার মাথা ফাঁটিয়ে দেয় প্রতিপক্ষরা-সন্ত্রাসীরা।

টঙ্গিবাড়ী থানায় লিখিত অভিযোগ করলেও মামলা নিচ্ছে না পুলিশ। প্রথম বারও একই লোকজন পেটালে টঙ্গিবাড়ী থানায় মামলা নেয়নি পুলিশ। দ্বিতীয় বার শহরের উপকন্ঠ পঞ্চসারে পেটানো হয়। তৃতীয় বারও টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বেতকা বাজারে পেটানো হলো। মাথা ও শরিরের বিভিন্ন স্থানে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। বর্তমানে সে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বুধবার টঙ্গিবাড়ি থানার তদন্তকারি কর্মকর্তা এস.আই সুজিত দাস বলেন-এ ঘটনায় তদন্ত ও সাক্ষীর অভাব রয়েছে। তাছাড়া ওসি স্যারের নির্দেশ রয়েছে মামলা রুজু না করতে।

খোঁজখবর