এম আর রাসকিনের স্মরণ-শোক সভা ও দোয়া মাহফিল

raskinকুসুমপুর চাঁদের হাটের আয়োজনে
ইমতিয়াজ বাবুল: বিকাল ৩ টায় সিরাজদিখান উপজেলার কুসুমপুর জাগরণী সংসদ মাঠে টাচিং সোলস ইন্টারন্যাশনালের পৃষ্ঠপোষকতায় ও কুসুমপুর চাঁদের হাটের আয়োজনে মুন্সিগঞ্জের চাঁদের হাটের ২৬ টি শাখার অংশ গ্রহণে এডভোকেট এম আর রাসকিনের স্মরণ-শোক সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। তিনি একাধারে কুসুমপুর চাঁদের হাটের প্রধান উপদেষ্টা, সিরাজদিখান প্রেসক্লাবের প্রধান উপদেষ্টা, কুসুমপুর উচ্চবিদ্যালয়ের সহ সভাপতি, জাগরণী ডায়াবেটিক সেন্টারের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, বিক্রমপুর ডিগ্রি কলেজের দাতা সদস্যসহ প্রায় ৩০ টি সমাজ কল্যাণ ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক ছিলেন।


কুসুমপুর চাঁদের হাটের সভাপতি সৈয়দ মাহমুদ হাসান মুকুট এর সভাপতিত্বে শোক সভায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, লেখক, চিন্তাবিদ, কলামিস্ট ও গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ, এম আর রাসকিনের বড় ভাই ড.মিজানুর রহমান শেলী, স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের অধিনায়ক ও জাতীয় প্রেসক্লাবের প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং কেন্দ্রীয় চাঁদের হাটের প্রেসিডিয়াম চেয়ারম্যান জাকারিয়া পিন্টু, সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ, ঢাকা রিপোর্টারস ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, আইএফসি বাংলাদেশ নদী ও পরিবেশ কমিটি মুন্সিগঞ্জ শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস ধীরণ, মাহমুদুর রহমান টিপু, মোখলেসুর রহমান টয়, বিক্রমপুর চাঁদের হাটের সভাপতি এমদাদুল হক পলাশ, ইছাপুরা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান কামাল চৌধুরী প্রমুখ।
raskin

raskin1
শোক সভায় মরহুম এম আর রাসকিন এর বর্ণাঢ্য কর্মজীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে বক্তরা বিশদ আলোকপাত করেন। উক্ত শোক সভায় কুসুমপুর গ্রামের সর্বস্তরের হাজারও মানুষ অংশ নেন। এম আর রাসকিনকে কুসুমপুর চাঁদের হাটের পক্ষ থেকে মরণত্তর সম্মাননা পদক দেয়া হয়। পদকটি অনুষ্ঠানের অতিথি সৈয়দ আবুল মকসুদের কাছ থেকে মরহুমের স্ত্রী আয়েশা রহমান গ্রহণ করেন। শেষে সকলে মরহুমের রুহের মাগফেরাতের জন্য দোয়া ও মুনাযাতে অংশ গ্রহণ করেন। দোয়া ও মুনাযাত পরিচালনা করেন মাওলানা মো: আলাউদ্দিন।