মুন্সীগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসা নেই!

mhনানা অব্যবস্থাপণা, ডাক্তার সঙ্কট আর রোগীদের হয়রানি করার মধ্য দিয়ে চলছে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা। প্রচন্ড শীতে ঠান্ডা, জ্বর, শ্বাসকষ্ট ও শীতজনিত রোগ ছড়িয়ে পড়ায় প্রতিদিনই ভর্তিসহ আউটডোরে রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে আউটডোরে দেখা গেছে রোগীদের উপচে পড়া ভিড়।


এসব শত শত রোগীকে হাতেগোনা কয়েকজন ডাক্তারকে সামাল দিতে হয়েছে। আবার ডাক্তারদের রিপ্রেজেনটেটিভদের সময় দিতে গিয়ে রোগীদের ভিড় আরো বেড়ে যেতে দেখা গেছে। আবার নির্ধারিত ডাক্তার না থাকায় অনেক রোগীকে চিকিৎসা না নিয়ে ফিরে যেতে দেখা গেছে। রোগীদের নানা দুর্ভোগ পোহাতে হয় চিকিৎসা নিতে। রোগীরা হুমড়ি খেয়ে ডাক্তারের রুমে প্রবেশ করেও দাঁড়িয়ে থেকে চিকিৎসা নিতে দেখা গেছে। সোমবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে ২শ’ শয্যা বিশিষ্ট মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে গেলে এ চিত্র ফুটে উঠে। তবে, রোগীর অসুবিধার কথা না শুনেই মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের ডাক্তারদের ওষুধ ও ব্যবস্থাপত্র দিতে দেখা গেছে। আবার রোগীকে নিজেদের প্রাইভেট চেম্বারেও যেতে পরামর্শ দিতে দেখা গেছে।
mh
সোমবার এ ছবিটি তোলা হয়েছে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আউটডোর চিকিৎসক মো. তোফাজ্জল হোসেনের কক্ষ থেকে। চিকিৎসক তোফাজ্জল হোসেন এভাবেই চিকিৎসা দেন রোগীদের

জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ২শ’ শয্যার চিকিৎসক ও লোকবল নেই। যা আছে তা দিয়ে চিকিৎসা চালানো সম্ভব নয়। এরই মধ্যে অর্থোপেডিক, মেডিকেল অফিসার ১জন, আউটডোর মেডিকেল অফিসার, শিশু বিশেষজ্ঞ ও চক্ষু বিশেষজ্ঞ নেই কয়েক মাস ধরে। জেনারেল হাসপাতালের আরএমও রয়েছেন ছুটিতে। এতে করে প্রতিদিন হাসপাতালের আউটডোরে আগত রোগীদের নানা হয়রানি, চিকিৎসকের খামখেয়ালিপনা, রুমে বসে রিপ্রেজেনটিভদের সঙ্গে ডাক্তারের আড্ডা ও অব্যবস্থাপনার কারণে অনেক রোগী চিকিৎসা না পেয়ে বাড়ি ফিরছেন।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা