মুন্সীগঞ্জে রাজনৈতিক অঙ্গনে মিশ্র-প্রতিক্রিয়া

politicসুমিত সরকার সুমন: বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা তৃতীয় বারের মতো দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেও তার মন্ত্রী সভায় ঠাঁই পায়নি রাজধানীর উপকন্ঠ সবচেয়ে বেশী রেমিটেন্স অর্জনকারী জেলা মুন্সীগঞ্জের কোন রাজনীতিক বা দলীয় এমপি। এ নিয়ে রোববার বিকেল থেকে রাত অব্দি মুন্সীগঞ্জের রাজনৈতিক অঙ্গনে মিশ্র-প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

সদর উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আফসার উদ্দিন ভূঁইয়া আফসু বলেন- প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তকে অবশ্যই এড়িয়ে যাওয়া যাবে না। আমরা আ’লীগ শাসনামলে কখনোই মন্ত্রীত্ব পাইনি। অনেক আশা ছিল-এবার বুঝি অন্তত একজন সিকি মন্ত্রী হলেও পাবো। সেই আশা গুড়ে-বালি হয়েছে।


সদর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ হোসেন বাবুল বলেন- আ’লীগের রাজনীতির প্রেক্ষাপটে মুন্সীগঞ্জের কোন জাতীয় পর্যায়ের রাজনীতিক আমরা দেখি নাই। সেই সেক্ষেত্রে অ্যাডভোকেট মৃনাল কান্তি দাসের মতো তরুনরা এমপি নির্বাচিত হয়েছেন তা কম কিসের।

জেলা আওয়ামী-মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগের সভাপতি শরীফুল ইসলাম সঞ্জিব বলেন, স্বাধীনতার ৪২ বছরে আ’লীগের শাসনামলে আমরা মন্ত্রীসভায় আবারো উপেক্ষিত হলাম।


জেলা আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান-সংগঠনের সমন্বয়ক সাইফুল ইসলাম সোহাগ বলেন, এক সময় প্রচলিত ছিল মুন্সীগঞ্জের মাটি বিএনপির ঘাঁটি। রাজনীতির আমুল উত্তরন ঘটিয়ে এখন মুন্সীগঞ্জের মাটি আ’লীগের ঘাঁটি হয়ে উঠেছে। কাজেই একজন হলেও মন্ত্রী কিংবা উপমন্ত্রী পেতে পারতাম আমরা।

যমুনা নিউজ