টঙ্গীবাড়িতে আটকে রেখে পেটানোর প্রতিবাদে মানববন্ধন

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ি উপজেলা পারিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলামকে দায়িত্বরত অবস্থায় নিজ অফিসের আটকে পেটানোর ঘটনার প্রতিবাদে উপজেলা মাঠে রোববার সকালে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল করেছে। পরে তারা টঙ্গীবাড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরিন পারভীন ও তার মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেন। এছাড়া, তারা টঙ্গীবাড়ি থানার ওসি আব্দুল মালেক ও তার মাধ্যমে পুলিশ সুপার হাবিবুর রহমানের কাছেও স্মারকলিপি প্রদান করেন।

টঙ্গীবাড়ি উপজেলা পারিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক আমির হোসেন জানান, উপজেলা পারিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলামকে হাসাইল-বানারী ইউপির চেয়ারম্যান নূরুুজ্জামান দেওয়ান ও তার লোকজন পেটানোর ৪দিন হলেও এখনও চেয়ারম্যান ও তার লোকজনদের কাউকেই গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। অন্যায় আবদার না মানার ফলে এভাবে লাঞ্চিত হওয়ার পর যদি দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হয় তাহলে কিভাবে চলবে। অবিলম্বে তারা দোষীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানান। সেই সাথে সরকাার কর্মচারীদের নিরাপত্তার ব্যাপারেও কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।


উল্লেখ্য বৃহস্পতিবার টঙ্গীবাড়ি উপজেলা পারিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলামকে দায়িত্বরত অবস্থায় নিজ অফিসের আটকে পিটিয়েছে হাসাইল-বানারী ইউপির চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান দেওয়ান ও তার লোকজন। চেয়ারম্যান তার স্ত্রীকে পরিবার কল্যান সহকারী পদে নিয়োগ নিশ্চিতের দাবি জানিয়ে মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নেয়া অপর প্রার্থীকে পার্শ্ববর্তী ইউনিয়নের বাসিন্দা দেখিয়ে সেখানকার দম্পতি রেজিস্টারের অন্তর্ভূক্তির করতে বলে। অন্যায় দাবি মেনে না নেয়ায় ৩০তম বিএসএস’র অফিসার মো. শফিকুল ইসলামকে লোকজনসহ পেটায় চেয়ারম্যান।

মুন্সীগঞ্জ বার্তা