হরতালে মুন্সীগঞ্জে টায়ারে আগুন, গাড়ি ভাঙচুর

hartalবিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলের ডাকা টানা হরতালের তৃতীয় দিনে মুন্সীগঞ্জে ৩টি অটোরিকশা ভাঙচুর, সড়কে টায়ারে আগুন দিয়েছে পিকেটাররা। মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এ ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া শহরের পৃথকস্থানে বিএনপি ও আ’লীগ পাল্টাপাল্টি অবস্থানে রয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে মুক্তারপুরে ৩টি অটোবাইক ভাঙচুর করেছে বিএনপি নেতাকর্মীরা। এছাড়া মুন্সীগঞ্জ-ঢাকা ও মুক্তারপুর-মুন্সীগঞ্জ সড়কে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে পিকেটাররা।

পরে জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুল হাইয়ের নেতৃত্বে বিএনপির ৫ শতাধিক নেতাকর্মী মুন্সীগঞ্জ শহরের উপকণ্ঠ মুক্তারপুরস্থ ৬ষ্ঠ বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতুর (মুক্তারপুর সেতু) ওপর অবস্থান নিয়ে ব্যারিকেড দেয় বিএনপি কর্মীরা। বর্তমানে তারা মুক্তারপুর এলাকায় অবস্থান করছে।


এর ফলে ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ-টঙ্গিবাড়ী-দিঘিরপাড় সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এছাড়াও সকাল থেকে শহরের কয়েকটি পয়েন্টে খণ্ড খণ্ড মিছিল করে বিএনপি ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা।

অপরদিকে, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরের সমষপুর এলাকায় ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে পিকেটিং করেছে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা।


দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকলেও ঢাকা-মাওয়া ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বেশ কিছু লোকাল যাত্রীবাহী বাস ও ছোট ছোট যানবাহন চলাচল করছে বলে জানিয়েছে হাইওয়ে পুলিশ। এছাড়া জেলার অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোতে যানবাহন চলাচল রয়েছে স্বাভাবিক।

বিএনপির ডাকা হরতালে মুন্সীগঞ্জ শহরের উত্তরাংশে ও মুক্তারপুরে দোকানপাট বন্ধ থাকলেও শহরের দক্ষিণাংশে সব দোকানপাট খোলা রয়েছে। অফিস আদালতের কার্যক্রম চলছে, বিভিন্ন স্কুল-কলেজে পাঠদান অন্য দিনের মতো অব্যাহত রয়েছে।

এছাড়া হরতাল পালন করলেও বিএনপি নেতাকর্মীরা রিকশা ও অন্য যানবাহন দিয়ে চলাচল করছে। মুক্তারপুর ও শহরে বিএনপি নেতাকর্মী মালিকানাধীন শিল্পকারখানা ও ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠান খোলা থাকার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অন্যদিকে, বিএনপি ও জামায়াতের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড প্রতিরোধ করতে মঙ্গলবার সকাল থেকেই খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে শহরের পুরাতন কাচারীস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকায় জড়ো হয়েছে আ’লীগ নেতাকর্মীরা।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর