রাজনীতি চলে যাচ্ছে দুর্বৃত্তদের হাতে – মিজানুর রহমান সিনহা

Mizanur-Rahman-Sinha-bg20131022233922রাজনীতিকদের হাতে এখন আর রাজনীতি নেই। ধীরে ধীরে রাজনীতি চলে যাচ্ছে দুর্বৃত্তদের হাতে। তবে এর জন্যে রাজনীতিকরাই দায়ী। চারদলীয় জোট সরকারের সাবেক স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী বিএনপি নেতা এবং একমি গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিজানুর রহমান সিনহা তার রাজধানীরকল্যাণপুরের ব্যবসায়িক কার্যালয়ে বাংলানিউজকে দেওয়া এক একান্ত সাক্ষাৎকারে এ অভিমত ব্যক্ত করেন।

সাবেক এই স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী আরও মনে করেন, অতীতে কোনো কোনো সরকার ক্ষমতায় গিয়ে দেশকে নিজের সম্পত্তি মনে করেছে। এটি খুবই দুর্ভাগ্যজনক।তবে তার দাবি তার দল বিএনপি ক্ষমতায় গিয়ে কখনো দেশকে নিজের সম্পত্তি মনে করেনি।
তার ভাষায়, `দেশকে নিজের সম্পত্তি মনে করার মানসিকতার কারণেই আমরা এগোতে পারছি না।`


ক্ষমতায় গিয়ে রাজনৈতিক নেতারা যদি দেশকে জনগণের বলে মনে করতেন, তবে এমনটি হতো না, আমরাও অনেক দূরে এগোতে পারতাম। সবাই মিলে দেশকে উন্নতির শিখরে নিয়ে যেতে পারতাম। রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে যতোদিন পর্যন্ত এই মানসিকতা আসবে না, ততোদিন আমরা মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারবো না।

চলমান রাজনৈতিক সংকট সম্পর্কে মিজানুর রহমান সিনহা বলেন, জনগণের মনোভাব সরকারের বোঝা উচিত। জনগণের মনোভাব বুঝে একমাত্র সরকারই এ সংকটের সমাধান করতে পারে। আশা করছি, সরকার দেশের কল্যাণের কথা চিন্তা করে সঠিক সিদ্ধান্ত নেবে।
Mizanur-Rahman-Sinha-120131023002432
তিনি আরো বলেন, কিছুদিন আগে পত্রিকায় পড়েছি, ২৫ অক্টোবরের পর সরকার মন্ত্রিপরিষদের সভা করবে না। কোনো সিদ্ধান্তও নেবে না। কিন্তু, মঙ্গলবার পত্রিকায় পড়লাম, সরকার মন্ত্রিপরিষদের সভা অব্যাহত রাখবে। এমন কী সিদ্ধান্তও নেবে। এটি করা সরকারের ঠিক হবে না।

তিনি বলেন, ২৫ অক্টোবরের পর মন্ত্রিপরিষদের সভা অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত অসাংবিধানিক। তাই সরকার কোনো সিদ্ধান্ত নিলেও সেটি কোনোভাবেই বৈধ হবে না।

মিজানুর রহমান সিনহা বলেন, সরকার অতিমাত্রায় আত্মবিশ্বাসী। তারা মনে করছেন, আগামী নির্বাচনে তারাই ক্ষমতায় আসবেন। তাই সংবিধান লঙ্ঘন করেই তারা মন্ত্রিপরিষদের সভা চালিয়ে চান। কিন্তু, ২৫ অক্টোবরের পর মন্ত্রিপরিষদের সভায় নেওয়া যেকোনো সিদ্ধান্তই অবৈধ বলে গণ্য হবে।

রাজনীতিকদের হাতে এখন আর রাজনীতি নেই। ধীরে ধীরে রাজনীতি চলে যাচ্ছে দুর্বৃত্তদের হাতে। এর কারণ হিসেবে আমরা যারা রাজনীতি করি, তাদের কারণেই আজ রাজনীতিতে এ অবস্থা হয়েছে বলেও অভিমত দেন এই বিএনপি নেতা।

তিনি বলেন, রাজনীতি একটি মহতী পেশা। রাজনীতির মাধ্যমেই সরাসরি জনগণের সেবা করা যায়। কিন্তু, এখন সেই অবস্থা নেই। রাজনীতিতে দুর্বৃত্তদের কারা ঢুকিয়েছে? রাজনৈতিক দলগুলোই ঢুকিয়েছে। তাদের অনেকেই নানা অপরাধ জড়িত। কিন্তু, এই দোষ গিয়ে পড়ছে রাজনৈতিক দলগুলোর ওপর।


তিনি বলেন, রাজনীতিতে দুর্বৃত্তদের অনুপ্রবেশের কারণেই ত্যাগী এবং সৎ রাজনীতিকরা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েছেন। তাই রাজনীতিতে গুণগত পরিবর্তন আনতে হলে সৎ মানুষকে রাজনীতিতে আনতে হবে। নির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়ার আগে রাজনৈতিক দলগুলোকে এটি বিবেচনায় নিতে হবে। নইলে এ অবস্থার পরিবর্তন হবে না।
Mizanur-Rahman-Sinha-bg20131022233922
রাজনীতি এখন ব্যবসা ও টাকা বানানোর মাধ্যমে পরিণত হয়েছে বলে অভিযোগ করে মিজানুর রহমান সিনহা বলেন, এখন নির্বাচন করতে অনেক টাকা লাগে। তাই নির্বাচনে যারা বেশি টাকা খরচ করেন, তারা বিজয়ী হয়ে নির্বাচনী ব্যয় তুলে নিতে চান।

এ অবস্থা থেকে উত্তরণে মিজানুর রহমান সিনহার সুপারিশ, নির্বাচনী ব্যয় কমিয়ে আনার উপায় খুজেঁ বের করার কথা ভাবতে হবে। নির্বাচনী ব্যয় কমিয়ে আনতে পারলে জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে টাকা বানানোর মানসিকতাও কমে যাবে। এছাড়া অন্য কোনো উপায় নেই।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর