মুন্সীগঞ্জে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫

aaaMunshigonjমুন্সীগঞ্জ শহরের সদর সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয়ের সামনে, হাসপাতাল এলাকা ও মধ্য কোটগাঁও এলাকায় দু’পক্ষের তিন দফা সংঘর্ষে পাঁচজন আহত হয়েছেন। সোমবার দুপুর ১টা থেকে আড়াইটা পর্যন্ত এ ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে মধ্য কোটগাঁও এলাকার আসিফ (২৪), তার বাবা টিপু মিয়া (৪৫) ও দক্ষিণ কোটগাঁও এলাকার সোহাগকে (২২) মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, দফায় দফায় দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনার পর থেকে শহরের দক্ষিণ কোটগাঁও, মধ্য কোটগাঁও ও গনকপাড়া এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো সময় আবারও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে বলে এলাকাবাসী আশঙ্কা করছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার দুপুর ১টার দিকে শহরের সদর সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়ের কাছে চায়ের দোকানের সামনে মাদকসেবী যুবক শাহজালাল ও তার লোকজনের সঙ্গে ছাত্রলীগ কর্মী আসিফের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে শাহজালাল চায়ের দোকান থেকে গরম পানি নিয়ে আসিফের গায়ে ঢেলে দেয়। এতে আসিফের বাবা টিপু মিয়া প্রতিবাদ করলে তাকেও মারধর করে শাহজালাল বাহিনী।


এ অবস্থায় স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে শাহজালালের ছোট ভাই সোহাগের সঙ্গে দ্বিতীয় দফা সংর্ঘষ বাধে। এসময় সোহাগ আহত হয় বলে জানা গেছে। খবর পেয়ে যুবলীগ নেতা মনির হোসেন নান্নু ও আবু হাসান ভূঁইয়া বাবু ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন।

এরই জের ধরে দুপুর আড়াইটার দিকে মধ্য কোটগাঁও এলাকায় দু’পক্ষের তৃতীয় দফা হাতাহাতির ঘ্টনা ঘটে। এসময় দুজন সামান্য আহত হন। তবে তাদের নাম জানা যায়নি।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহীদুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় টিপু মিয়া বাদী হয়ে শাহজালালকে প্রধান আসামি করে থানায় অভিযোগ দাখিল করেছে। শাহজালালকে গ্রেফতার করতে পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর
=============

মুন্সীগঞ্জ ছাত্রলীগের দু’গ্রপের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ছাত্রলীগের দু’গ্রপের মধ্যে হাতাহাতি ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এতে হাসপাতালের রোগী ও ডাক্তার-কর্মচারিদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এর আধঘন্টা আগে শহরের মসজিদ মার্কেটে একই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। এ সময় অন্তত ৫ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে সোহাগ মিজি (৩০)-কে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অপর আহত আসিফ (২২) ও তার বাবা ব্যাংকার টিপু (৪৭)-কে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। সোমবার দুপুরে পৃথক এ ঘটনা ঘটে।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শহীদুল ইসলাম জানান, ছাত্রলীগের শাহ-জালাল ও রাজা নামে দু’যুবক হরগঙ্গা কলেজ এলাকায় অপর দু’যুবককে আটক করে মোবাইল ছিনিয়ে নেয়। এ ঘটনার জের ধরে দুপুর ১ টার দিকে প্রথমে শহরের পুরাতন কাচারীস্থ মসজিদ মার্কেটে শহরের দক্ষিণ কোর্টগাঁও এলাকার ছাত্রলীগ কর্মী শাহ-জালাল ও মধ্য কোর্টগাঁও এলাকার অপর ছাত্রলীগ কর্মী আসিফ দু’গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দক্ষিণ কোর্টগাঁও ও মধ্য কোর্টগাঁও এলাকার লোকজন দু’গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পড়ে। পরে আহতদের চিকিৎহসার জন্য মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে আনা হয়। সেখানে দুপুর দেড়টার দিকে উভয় গ্রুপের সমর্থকদের মধ্যে হাতাহাতি ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলে। সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

ঢাকা নিউজ এজেন্সি