লৌহজংয়ে যুবলীগ নেতাকে নির্যাতনের প্রতিবাদ বিক্ষোভ সমাবেশ

aaaMunshigonjলৌহজং উপজেলার লৌহজং-টেউটিয়া ইউপি যুব লীগের সাধারণ সম্পাদক দিদার হোসেন মোল্লাকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের প্রতিবাদে শুক্রবার প্রতিবাদ সমাবেশ হয়েছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে উপজেলা যুব লীগের সভাপতি মেহেদি হাসানের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা যুব লীগের দপ্তর সম্পাদক মো. অলিউল ইসলাম অলি, উপজেলা যুবলীগ সহ-সভাপতি আলমগীর কবির খান, ওয়াহিদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন, আবুল বাশার খান, দেলোয়ার হোসেন প্রমুখ।

এ ছাড়া প্রতিটি ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি সম্পাদকসহ বিপুল সংখ্যক নেতা কর্মী উপস্থিত ছিলেন। সমাবেশে বক্তাগণ দিদারের উপর বর্বর নির্যাতনের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।


সভাশেষে একটি বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ মিছিল উপজেলার প্রধান সড়ক প্রদদিক্ষন করে।

সমাবেশে জানানো হয়- লৌহজং উপজেলার কনকসার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে বেধে রেখে যুবলীগ নেতা দিদার হোসেন মোল্লাকে (২৮) নির্মম নির্যাতন চলায়।

বুধবার বিকাল ৩টা থেকে ঘন্টাকাল ধরে মধ্য যুগীয় কায়দায় এই নির্যাতনের সময় পানির জন্য আকুতি করলে তাকে প্রসাব দেয়া হয়।

খবর পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে প্রথমে লৌহজং হাসপাতাল ও পরে রাতে ঢাকা মিডফোর্ড হাসপাতালে ভর্তি করে।

এসব তথ্য নিশ্চিত করে লৌহজং থানার ওসি মো. আবুল কালাম বৃস্পতিবার রাতে জানান, দিদার হোসেন মোল্লা বাদী হয়ে থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেছে।

এতে প্রধান আসামী করা হয়েছে খোকা মৃধা (৩৬) এবং অপর পাঁচ জনের নাম ছাড়াও অজ্ঞাত ৫০-৬০ জনকে আসামী করা হয়েছে। পুলিশ আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে।

পুলিশ জানায়, দিদার হোসেন মোল্লার সাথে খোকা মৃধার ঘটনার আগের দিন কোরবানীর হাটের ইজারা সংক্রান্ত বিষয়ে কথা কাটাকাটির জের ধরে এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।

হাসপাতালে ভর্তি দিদার হোসেন মোল্লা বলেন, “বেধে রেখে এমনভাবে নির্যাতন করেছে যা আমি বর্ণণা করতে পারছি না। একটু পানি খেতে আকুতি করছিলাম, আমাকে বলে একটি পানির বোতল প্রসাব বা অন্য কোন তরল পদার্থ এনে দেয়। হলদে হলদে দেখে আমি তা খাইনি। এজন্য অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করে। পরে পুলিশ আসায় আমি প্রানে বেঁচে যাই। ”

মুন্সীগঞ্জ নিউজ