মাওয়ায় শতাধিক লোক নিয়ে নদী ভাঙ্গন, নিখোঁজ ১৬

আপডেট খবর
মোজাম্মেল হোসেন সজলঃ ফাটল-ভাঙনে বিধ্বস্ত এখন মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মাওয়ার পরিত্যক্ত পুরাতন ফেরিঘাট এলাকা। সোমবার বিকেল ৫টার দিকে পুরাতন ফেরিঘাটের ফাটল এলাকায় দাঁড়িয়ে থাকা শতাধিক লোক নিয়ে ৩০ ফুট ফাটলটি (চোরনটি) নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে ।

এ সময় অজ্ঞাতনামা ২শিশুসহ কয়েকজন আহত হয়। এ রিপোর্ট লেখার সময় অন্তত ১৬ ব্যক্তি নিখোঁজ রয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে। তাৎক্ষনিক তাদের নাম-ঠিকানা জানা যায়নি। বাকিরা সাতরিয়ে পাড়ে উঠতে সক্ষম হয়েছে।

তবে, মাওয়া নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই হাফিজুর রহমান জানিয়েছেন, লোকজন ফাটলের সঙ্গে নদীতে পড়ে গেলেও এখন পর্যন্ত কেউ নিখোঁজ রয়েছে-স্বজনদের পক্ষ থেকে এ দাবি করা হয়নি। কেউ নিখোঁজ নেই বলে ওই পুলিশ কর্মকর্তা দাবি করেন।


ওদিকে, সকাল ৭টার দিকে এক পলকেই পদ্মা গর্ভে চলে গেছে ১৫টি বসতবাড়ি ও ৭টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এ সময় একটি মসজিদের অবশিষ্ট অংশ ও একটি মাজারও পদ্মা গর্ভে চলে যায়। নদী পাড়ের আতঙ্কিত লোকজন এখন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, বাড়িঘরসহ স্থাপনা সরিয়ে নিচ্ছেন।

গত বছরও ভাঙনে বিপন্ন হয়ে পড়ে মাওয়াঘাট এলাকা। এরপর মাওয়ার পুরাতন ৩ নং রো রো ফেরিঘাটটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়।

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদল বলেন, ক্ষতিগ্রস্থদের কিভাবে সাহায্য-সহযোগিতা করা যায় সে জন্য আমরা তাদের তালিকা তৈরি করছি। ভাঙনরোধে বিআইডব্লিউটিএসহ সংশ্লিষ্টদের অবহিত করা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

এ ব্যাপারে মাওয়াস্থ বিআইডব্লিউটিসির সহকারী মহাব্যবস্থাপক এসএম আশিকুজ্জামান জানান, ভাঙন আতঙ্কে লোকজন অন্যত্র চলে যাচ্ছেন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভাঙনরোধের কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। ক্ষতিগ্রস্তদেরও আর্থিক সহযোগিতা করা হয়নি।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর