৬ বছর আগে পরিত্যক্ত ঘোষণা: ভাঙ্গা হয়নি ছাত্রাবাস

hccমুন্সীগঞ্জ শহরের ঐতিহ্যবাহী সরকারি হরগঙ্গা কলেজের ছাত্রাবাসের ত্রিতল ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণার ৬ বছরেও ভেঙ্গে ফেলা হয়নি। জরাজীর্ণ এই ছাত্রাবাসটি এখন চরম ঝুঁকির মধ্যে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে আছে। জরাজীর্ণ ভবনটি দ্রুত ভেঙ্গে ফেলার উদ্যোগ না নিলে যে কোন মুহূর্তে ভবন ধসে ব্যাপক প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে। কলেজের জিয়া হলের জায়গা সংকুলান না হওয়ায় অর্নাস শ্রেণীর বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী জরাজীর্ণ ঝুঁকিপূর্ণ ছাত্রাবাসের কয়েকটি কক্ষ জুড়ে বসবাস করে আসছে।

দূর-দূরান্তের এই শিক্ষার্থীরা জিয়া হলে সিট বরাদ্দ না পেয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অর্ধশতাধিক বছর আগের জরাজীর্ণ ভবনে রাত যাপন করছেন পাঠদান স্বাভাবিক রাখতে। এছাড়া দূর-দূরান্তেরওই শিক্ষার্থীদের বিকল্প কোন পথ নেই বলে দাবি করেন অনার্স শ্রেণীর তৃতীয় বর্ষের কয়েক শিক্ষার্থী। নাম প্রকাশে অপারগতা জানিয়ে শিক্ষার্থীরা বলেন, জানি নিশ্চিত মৃত্যুর কথা। তবু কি করবো-পড়ালেখার খরচ মিটিয়ে ভাড়া বাসায় থেকে পাঠদান চালিয়ে যাওয়া এ উর্ধ্বমুল্যের বাজারে সম্ভব নয়।


এইতো আর ক’টা দিন পর কলেজের পাঠদান চুকবে তাদের। তাই জীবনের মূল্যের চেয়ে মেধাবী শিক্ষার্থীদের কাছে এই জরাজীর্ণ ছাত্রাবাসই মায়ের স্নেহের ছায়া হয়ে দাঁড়িয়ে আছেন হরগঙ্গা কলেজের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত পুরনো ছাত্রাবাসের পরিত্যক্ত ত্রিতল এই ভবনটি।

সরকারি হরগঙ্গা কলেজের অধ্যক্ষ সুখেন চন্দ্র ব্যানার্জী জানান, বিশাল আয়তনের এই ছাত্রাবাসটি ২০০৭ সালে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। এতে ওই ছাত্রাবাসে শিক্ষার্থীদের বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে না। পুরনো এই ছাত্রাবাস পরিত্যক্ত ঘোষণার পাশাপাশি জিয়া হল নামে একটি ত্রিতল ছাত্রাবাস ভবনটি নির্মিত হয় তৎকালীন সময়ে। নতুন ছাত্রাবাস ভবনে শিক্ষার্থীদের স্থান সংকুলান হচ্ছে না।

মুন্সীগঞ্জের ৬ টি উপজেলা ছাড়াও কুমিল্ল, রাজশাহী, চট্টগ্রাম থেকেও বেশ সংখ্যক শিক্ষার্থী হরগঙ্গা কলেজে একাদশ-দ্বাদশ, অনার্স ও ডিগ্রী পাশ কোর্সে অধ্যয়নরত রয়েছে। হাজারো শিক্ষার্থীর কোলাহলে মুখর হয়ে থাকে এ কলেজটির ক্যাম্পাস।


কাজেই শিগগির সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জরাজীর্ণ পরিত্যক্ত ছাত্রাবাস ভবনটি ভেঙ্গে নিলে ভবন ধসে প্রাণহানির আশঙ্কা থেকে রেহাই মিলতো। সরকারি হরগঙ্গা কলেজের অধ্যক্ষের দাবি- এরপরও অনেক শিক্ষার্থী কর্তৃপক্ষের নজরের বাইরে জরাজীর্ণ ছাত্রাবাস ভবনে থেকে পড়াশুনা চালিয়ে আসছে। ওই সব শিক্ষার্থী যেন লুকিয়ে লুকিয়ে না থাকতে পারে, সেই জন্য প্রায়শ: তিনি ছাত্রাবাস ভবনে ঘুরে ফিরে আসেন। তখন কোন শিক্ষার্থীর দেখা পেলে তাকে বিকল্প ব্যবস্থা করে দেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে থাকেন তিনি।

১৯৪০ সালে সরকারি হরগঙ্গা কলেজের ত্রিতল এই ছাত্রাবাসটি নির্মিত হয়। ২০০৭ সালে গণপূর্ত বিভাগ ছাত্রাবাস ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করলেও আজোবধি তা ভেঙ্গে ফেলার উদ্যোগ নেয়া হয়নি। এতে মৃত্যু ঝুাঁকি নিয়ে আজো দাঁড়িয়ে আছে হরগঙ্গা কলেজের পুরনো ছাত্রাবাসটি।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর