সিরাজদিখানে প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে ১০ জন আহত

সিরাজদিখানে গত তিন দিনে প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’ গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়। জুতিয়া, বল্লম, রামদাসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে উভয় পক্ষ মুখোমুখি হলে পুলিশ খবর পেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। জানাযায়, ঈদের দিন দিবাগত রাত ৮টায় উপজেলার ভাষানচর গ্রামের ব্রিজের ঢালে প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে জাকিরের নেতৃত্বে ১৫/২০ জনের একটি সংঘবদ্ধ দল পাশের গ্রাম দোষরপাড়ার শাহাদাৎ (১৯), নাজমুল (১৮) ও হাসানকে (১৬) মারধর করে। তারা হাসপাতালে চিকিৎসা নেয় ।

পরদিন দোসরপাড়া গ্রামবাসী এর প্রতিবাদ জানালে জাকির (৪৫), আলি হোসেন (৫০), আমির হোসেন (৪০), নুর হোসেন (৩০), শরীফ (২৫), কাওসারসহ (২২), ২০/২৫ জন বেলা ১২টায় ভাষানচর ব্রিজের ঢালে সংঘবদ্ধ হয়।

দোষরপাড়া গ্রামের লোকজন বালুরচর বাজারে যাওয়ার পথে সংঘবদ্ধদলটি অতর্কিত হামলা চালায়।


এতে প্রায় ১০ জন আহত হয় ও একটি অটো গাড়ী ভাংচুর করে।

আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

গুরুতর আহতদের মধ্যে দোষরপাড়া গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে আরিফ হোসেনকে (১৮) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এব্যাপারে গুরুতর আহত আরিফের বড় ভাই রিপন জানান, আমাদের সাথে কারো দ্বন্দ নেই।

জাকিরের নেতৃত্বে তার লোকজন আমার নিরিহ ছোট ভাই কে মেরে গুরুতর আহত করে।

থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।

সিরাজদিখান থানার ডিউটি অফিসার এস আই ইলিয়াস জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। তিন গ্রামের মাদবররা মিমাংসা করবেন বলে জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে ভাষানচর ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য দিন ইসলাম জানান, পরিস্থিতি আমরা ও পুলিশ নিয়ন্ত্রণে এনেছি। এখন আর কোন সমস্যা নাই। গুরুতর আহত ছেলেটি সুস্থ হলেই আমরা বিচার করব। একটি তুচ্ছঘটনাকে কেন্দ্র করে ভুল বুঝাবুঝির কারণে এই ঘটনা ঘটেছিল।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ