পদ্মায় ড্রেজিং শুরু

mawa-padma-polঈদে ঘরমুখো দক্ষিণবঙ্গের বিপুল সংখ্যক মানুষের নির্বিঘ্নে পারাপারের লক্ষ্যে জরুরী ভিত্তিতে নাব্যতা সঙ্কট কাটাতে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌ-রুটের পদ্মায় ড্রেজিং শুরু করা হয়েছে। বিআইডব্লিউটিএর নিজস্ব ৩ টি ড্রেজার দিয়ে নৌ-রুটে পলি অপসারণ কাজ শুরু করা হয়।

এর আগে গত শুক্রবার নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান মাওয়া ফেরিঘাট পরিদর্শন করার সময় চ্যানেলের নাব্যতা আনয়নের লক্ষ্যে নৌরুটে দ্রুত ড্রেজার বসিয়ে পলি অপসারণের জন্য সংশ্লিষ্ট বিআইডব্লিউটি এর প্রধান প্রকৌশলীকে নির্দেশ দেন।

বিআইডব্লিউটিসি ও বিআইডব্লিউটি এর সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের কারণে পদ্মায় প্রচণ্ড স্রোতের কারণে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌ-রুটেও ধেয়ে আসতে থাকে অসংখ্য পলি। গত কয়েকদিন ধরে পদ্মায় পানি হ্রাস অব্যাহত থাকলেও স্রোত না কমায় নৌরুটে ক্রমেই পলি জমে জমে তলদেশ ভরাট হয়ে চ্যানেলের দুটি স্থানে গভীরতা হ্রাস পায়।


নৌ-রুটের মাওয়া থেকে সাড়ে ৫কিলোমিটার অদূরে লৌহজং টার্নিংয়ের ৫শ’ গজ ভেতরে ৪শ’ ফুট এলাকায় অতিমাত্রায় স্রোতের ঘূর্ণিপাকতে ক্রমেই পলি জমে গত ২ আগস্ট এ চ্যানেলে মাত্র ৮ ফুট পানি বিরাজ করছিল। অপরদিকে গত পরশু মাওয়া ২ নম্বর ঘাটের কাছে ২শ’ ফুট এলাকায় মাত্র সাড়ে ৫ফুট গভীরতায় পানি বিরাজ করে। এতে করে ফেরিগুলো এ ঘাটে ভিড়তে ও ছেড়ে যেতে মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে। গত ১ আগস্ট রাতে টাগ আইটি-৯৬ যাত্রীবাহী ফেরি রামশ্রী নিয়ে মাওয়া থেকে কাওড়াকান্দি যাওয়ার পথে লৌহজং টার্নিংয়ের ধাক্কা খায়। একপর্যায়ে ফেরিটি ডুবোচর থেকে নিজে নিজেই উদ্ধার হলেও এ চ্যানেলে বালুবাহী ভলগেট প্রায়ই আটকে যাচ্ছে।

এদিকে পানি হ্রাস ও পলি জমে জমে নৌরুটে নাব্যতা সঙ্কট সৃষ্টি হওয়ায় যে কোন মুহূর্তে ফেরি চলাচল বন্ধের আশঙ্কা করছে বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ। বিষয়টি কয়েক দফায় মাওয়া ফেরি কর্তৃপক্ষ বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে। তাই আসন্ন ঈদে দক্ষিণবঙ্গের ঘরমুখো মানুষের নির্বিঘ্নে পারাপারের লক্ষ্যে জরুরী ভিত্তিতে নাব্যতা সঙ্কট কাটাতে মাওয়া নৌরুটে আজ থেকে বিআইডব্লিউটি এর নিজস্ব ৩ টি ড্রেজার দিয়ে পলি অপসারণ কাজ শুরু করে।

বিআইডব্লিউটি এর নির্বাহী প্রকৌশলী সুলতান আহমেদ জানান, নাব্যতা সঙ্কট কাটাতে এরই মধ্যে ড্রেজার-১৩৭ ও কর্ণফুলী নামের দুইটি ড্রেজার লৌহজং টার্নিংয়ে এবং মাওয়া ২ নম্বর ঘাটের কাছে ড্রেজার-১৩৬সহ মোট ৩টি ড্রেজার দিয়ে পলি অপসারণ কাজ শুরু করা হয়েছে।


বিআইডব্লিউটিএর উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. ইকবাল হোসেন জানান, লৌহজং টার্নিংয়ের ১৬শ’ ফুট এলাকায় এবং মাওয়া ২ নম্বর ঘাটের কাছে ২শ’ ফুট এলাকায় পলি অপসারণ কাজ শুরু করা হলেও লৌহজং টার্নিংয়ে ঈদের আগেই একটি কাট শেষ করা যাবে।

এ ব্যাপারে মাওয়া বিআইডব্লিউটিসির মেরিন অফিসার মো. শাজাহান জানান, নৌরুটে পলিপ্রবাহ ও দ্রুতগতিতে পানি হ্রাস পাওয়ায় চ্যানেলের দুটি স্থানে নাব্যতা সঙ্কট দেখা দিয়েছে। ফেরির প্রকারভেদে ভেদে ৬ ফুট থেকে সাড়ে ৭ ফুট ড্রাফটে ফেরি চলাচল করতে সক্ষম হলেও গত পরশু ২ নম্বর ঘাটে কাছে মাত্র সাড়ে ৫ফুট পানি ছিল। যা জরুরী ভিত্তিতে পলি অপসারণ করা হচ্ছে।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর