আ’লীগ নেতার হত্যা চেষ্টা, প্রতিবাদে মাওয়ায় অবরোধ

mawa-strick.dr24মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের মাওয়া সি-বোট ঘাটের ইজারাদার ও আওয়ামী লীগ নেতা আশরাফ হোসেনকে হত্যার প্রচেষ্টাকারীদের চিহ্নিত করার দাবিতে হাইওয়ে সড়ক অবরোধ করা হয়েছে।


বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২ টা পর্যন্ত আশরাফ সমর্থকরা মাওয়া চৌরাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে ব্যারিকেড দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়। এ সময় মাওয়া হাইওয়ে সড়কে শত শত যানবাহন আটকে পড়ে। গাড়ির অভাবে ফেরি চলাচল বিঘ্নিত হয়। দক্ষিণবঙ্গের ২১ জেলার যাত্রীদের ব্যাপক দুর্ভোগ পোহাতে হয়। যাত্রীদের পায়ে হেটে গন্তব্য চলাচল করতে দেখা গেছে।

দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে শ্রীনগর সার্কেলের এএসপি মো. কুতুবুর রহমান আগামী তিন দিনের মধ্যে হত্যাপ্রচেষ্টাকারীদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তারের আশ্বাস দিলে অবরোধকারীরা অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয়। এ সময় সার্কেল কুতুবুর রহমানের সঙ্গে লৌহজং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশীদ সিকদার উপস্থিত ছিলেন। এ তথ্য জানিয়েছেন মাওয়া ট্রাফিক সার্জেন্ট মো. শাহাদাত হোসেন।
mawa-strick.dr24
মাওয়া নৌ-পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ এসআই হাফিজুর রহমান জানান, বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে ঢাকা ও শরীয়তপুর থেকে ৬ জন সন্ত্রাসী আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে মাওয়া ঘাটে আসে লৌহজংয়ের মেদিনীমণ্ডল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও মাওয়া সি-বোট ঘাট ইজারাদার আশরাফ হোসেনকে হত্যা করার জন্য। এ সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আগে থেকেই ওঁতপেতে থাকা পুলিশ সদস্যরা মাওয়ায় শীর্ষ সন্ত্রাসী চাপাতি শামসু (৫০), রিয়াজুল ইসলাম টুটুল (৩০) মোহাম্মদ আলী (৩৫) মো. আলামিন (৩৪), মো. সাদেক (৩৭) ও এমারত (৩০) আটক করে। প্রেস লেখা একটি মাইক্রোবাসে চড়ে তারা মাওয়ায় আসে। আটকের পর তাদের তল্লাশি করে দু’দফায় ১টি শর্টগান, ১টি রিভলবার, দেশিয় তৈরি ২টি পাইপগান, ১৮ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। গুলিগুলো লোড করা ছিল। এ সময় ফেনসিডিল ও গাঁজাও উদ্ধার করে পুলিশ।


এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগ নেতা ইজারাদার আশরাফ হোসেন বলেন, ‘আমি আগে থেকেই খবর পেয়ে পেয়ে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকে জানাই ঢাকা থেকে একটি গ্রুপ ও জাজিরা থেকে আরেকটি গ্রুপ হত্যা করার জন্য আসছে। তারা ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী। কারণ, তারা কেউ আমার এলাকার নয়, আমি তাদের চিনি না। তাদের সঙ্গে আমার দ্বন্দ্বও নেই। কেউ না কেউ আমাকে হত্যা করার জন্য তাদের ভাড়া করে এনেছে। আমাকে হত্যা প্রচেষ্টাকারীদের চিহ্নিত করার জন্যই এলাকাবাসী এ অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন।’

শ্রীনগর সার্কেলের এএসপি ঘটনাস্থলে এসে আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেয়া হয়।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর