মাওয়ায় আ.লীগ নেতাকে হত্যার চেষ্টা : ৬ সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের মাওয়ায় আওয়ামী লীগ নেতাকে আশরাফ হোসেনকে হত্যা করতে এসে অস্ত্র ও গুলিসহ ৬ সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ সময় তাদের ব্যবহৃত প্রেস লেখা একটি হাইয়েস মাইক্রো বাস (ঢাকা মেট্রো চ-১৫-১৭-৮১) আটক করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলো-শীর্ষ সন্ত্রাসী চাপাতি শামসু (৫০), রিয়াজুল ইসলাম টুটুল (৩০) মোহাম্মদ আলী (৩৫) মো. আলামিন (৩৪), মো. সাদেক (৩৭) ও এমারত (৩০)।


বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় মাওয়া ঘাটে তাদের আগ্নেয়াস্ত্রসহ আটক করা হয়। আটককৃতদের বাড়ি ঢাকার যাত্রাবাড়ি ও শরীয়তপুরের জাজিরায়।

মাওয়া নৌ-পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ এসআই হাফিজুর রহমান জানান, ঢাকা থেকে ৬জন সন্ত্রাসী লাইসেন্স করা ১টি শর্টগান, শর্টগানের ৬ রাউন্ড গুলি, ১টি রিভলবার ও রিভলবারের ৬ রাউন্ড গুলি লোড করে মাওয়া ঘাটে আসে লৌহজংয়ের মেদিনীমন্ডল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও মাওয়া সি-বোট ঘাট ইজারাদার আশরাফ হোসেনকে হত্যা করার জন্য। এ সময় গোপন সংবাদে আগে থেকেই ওঁতপেতে থাকা পুলিশ সদস্যরা তাদের আটক করে। প্রেস লেখা মাইক্রোবাসটি তল্লাশি করে ওইসব গোলা-বারুদ উদ্ধার করা হয়। তিনি আরো বলেন, মাইক্রোবাসের ভেতর আরো অস্ত্র ও মাদক পাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।


আওয়ামী লীগ নেতা ইজারাদার আশরাফ হোসেন বলেন, আমি আগে থেকেই খবর পেয়ে পেয়ে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকে জানাই ঢাকা থেকে একটি গ্রুপ ও জাজিরা থেকে আরেকটি গ্রুপ হত্যা করার জন্য আসছে। তারা ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী। কারণ, তারা কেউ আমার এলাকার নয়, আমি তাদের চিনি না। তাদের সঙ্গে আমার দ্বন্দ্বও নেই। কেউ না কেউ আমাকে হত্যা করার জন্য তাদের ভাড়া করে এনেছে।

এ রিপোর্ট লেখার সময় রাত সোয়া ১০ টায় তাদের জিজ্ঞাসাবাদ ও মামলা দায়ের করার প্রস্ততি চলছে বলে মাওয়া নৌ-পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ এসআই হাফিজুর রহমান জানান।

জাস্ট নিউজ