লৌহজংয়ে ১০ গ্রাম প্লাবিত

পদ্মায় পানি বৃদ্ধির ফলে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার নিম্নাঞ্চলের ১০টি গ্রাম প্লাবিত হয়ে দুই শতাধিক পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। এছাড়া পানিতে তলিয়ে গেছে বসতভিটা, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, অভ্যন্তরীণ সড়ক ও বাড়ির আঙিনাসহ ফসলি জমি।

এ অবস্থায় পদ্মা পাড়ের পরিবারগুলোর যাতায়াতের জন্য বাঁশের সাঁকো ও নৌকাই এখন একমাত্র ভরসা হয়ে দাড়িয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উজান থেকে ধেয়ে আসা পাহাড়ি ঢলের কারণে গত কয়েকদিন প্রতিদিন ৫-৬ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পায়। শনিবার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে ৮ সেন্টিমিটারের মতো।


এর ফলে লৌহজং উপজেলার মশদগাঁও, কনকসার, মেদেনীমণ্ডল, মাওয়া, কুমারভোগ, ঘোড়দৌড়, হলদিয়াসহ প্রায় ১০টি গ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে পড়ে।

স্থানীয় সূত্র আরো জানান, শুক্রবার ও শনিবার দুই দিনে পদ্মার পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় নদী তীরবর্তী গ্রামগুলোর বিভিন্ন বাড়িতে পানি ঢুকে পড়েছে। কোনো কোনো বসতবাড়ির উঠানে কোমড় পর্যন্ত পানি থৈ থৈ করছে।

মাওয়া এলাকার কুদ্দুস মিয়া জানান, পানিবন্দী হয়ে পড়া পরিবারগুলোর জীবনযাত্রা দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। ভিটেমাটি পানিতে ডুবে যাওয়ায় পরিবারের নারী-শিশু সদস্যরা অনেকটা গৃহবন্দী হয়ে পড়েছেন। গৃহস্থালি কাজকর্ম করতে হচ্ছে পানিতে ভিজে।

লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. অহিদুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, পানি বৃদ্ধির ফলে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের ২শ’ পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়ার কোনো তথ্য তার জানা নেই এবং এ বিষয়ে কোনো মনিটরিংও করা হচ্ছেনা।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর