টঙ্গীবাড়ীতে রাস্তার পাশের ২ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের গাছ কর্তন

tongibaritreeeমোজাফফর হোসেন: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার সাতুল্লা নামক স্থানের রাস্তার পাশের অণুমানিক ২ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের ৮ টি কড়ই গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছে দূর্বত্তরা। অফিস বন্ধের দিন শুক্রবার হতে এ গাছগুলো কর্তন করা শুরু করে তারা। ইতিমধ্যে ৫ টি গাছ কেটে তা সড়িয়ে ফেলা হয়েছে। বাকি ৩ টি গাছের ডালপালা কাটা হয়েছে এবং অবশিষ্ট অংশ কাটার কাজ চলছে। গতকাল শনিবার সরোজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, স্থাণীয় পাচঁগাঁও ওয়র্ডের সাবেক মেম্বার হাকিম খন্দকার সামনে দাড়িয়ে থেকে লেবার দিয়ে গাছ কাটাচ্ছেন। সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে কেটে পরে সে।


জানাগেছে, উপজেলার কাইচমালধা গ্রামের নিরব ফকির সাতুল্লা বেবি স্ট্যন্ডের রাস্তা সংলগ্ন একটি নতুন বাড়ি নির্মান করছেন। আর এ গাছগুলো কর্তন করে বাড়ির বাউন্ডারী নির্মাণ করছে সে। গাছকর্তনকারী লেবারদের সাথে কথা বলে জানাগেছে, উপজেলার সাতুল্লা গ্রামের হাকিম খন্দকার ও তার ছেলে গণি খন্দকার তাদের গাছগুলো কাটতে নির্দেশ দিয়েছে। তাদের নির্দেশেই গাছ কাটছে তারা। পাচঁগাওঁ ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি সোহেল আহম্মেদ আজাদ ও আকলিমা জানান, বাড়ি মালিক নিরব ফকিরের নির্দেশে হাকিম খন্দকার ও তার ছেলে গণি খন্দকার উপস্থিত থেকে গাছগুলো লেবার লাগিয়ে ২ দিন যাবৎ কেটে নিয়ে যাচ্ছে। আমরা প্রতিবাদ করলে তারা সরকারী অনুমতি নিয়েই গাছ কাটছে বলে আমাদের জানায়।

উপজেলার পাচঁগাঁও ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার জালাল মোল্লা জানান, এ গাছগুলো উপজেলা বন বিভাগের মাধ্যমে আমারা সমিতি করে রোপন করেছিলাম, আমাদের না জানিয়ে সরকারী কোন অনুমতি না নিয়ে নির্বিচারে গাছগুলো কর্তন করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে হাকিম খন্দকার এর সাথে যোগাযোগ করা হলে সে, গাছ কাটার বিষয়ে আমি কিছু জানিনা, এ বিষয়ে বাড়ির মালিক ভালো বলতে পারবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরিন পারভীন এর সাথে যোগাযোগ করা হলে সে জানায়, গাছ কাটা বিষয়ে আমাকে কেউ ইনফর্ম করেনি। আমি বিষয়টি দেখছি।
tongibaritreee
রাস্তার পাশের গাছ কাটছে দূর্বত্তরা।