মুন্সীগঞ্জ সরকারি কলেজে ছাত্রলীগের ভাঙচুর

মুন্সীগঞ্জ জেলা সরকারি হরগঙ্গা কলেজ অধ্যক্ষের কক্ষ ভাঙচুর করেছে কলেজ শাখা ছাত্রলীগ কর্মীরা। মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে একাদশ শ্রেণীতে শিক্ষার্থী ভর্তি করাকে কেন্দ্র করে এ ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, একাদশ শ্রেণীতে শিক্ষার্থী ভর্তি করাকে কেন্দ্র করে শিকক্ষদের সঙ্গে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের কথা কাটাকাটি হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কলেজের অধ্যক্ষের কক্ষ ঘেরাও করে তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দেয় ছাত্রলীগ কর্মীরা।

একপর্যায়ে বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ কর্মীরা ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে অধ্যক্ষের কক্ষে ভাঙচুর করে।

তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান।


তিনি বাংলানিউজকে জানান, ভর্তি নিয়ে শিক্ষকরা আর্থিক সুবিধা নেওয়ার জন্য টালবাহানা শুরু করলে সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিক্ষুদ্ধ হয়ে ভাঙচুর করে।

এ ব্যাপারে কলেজের অধ্যক্ষ সুখেন চন্দ্র ব্যানার্জী বাংলানিউজকে জানান, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্দেশিত নিয়ম অনুযায়ী একাদশ শ্রেণীতে শিক্ষার্থীদের ভর্তি করা হচ্ছে। অথচ শিক্ষার্থীদের ভর্তির ক্ষেত্রে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা অযৌক্তিক দাবি তুলে ভাঙচুর করেছে।

দুপুরে সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সবুর বাংলানিউজকে জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ফের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর
================

মুন্সীগঞ্জে সরকারি হরগঙ্গা কলেজ অধ্যক্ষের কক্ষে ছাত্রলীগের তালা

মুন্সীগঞ্জ সরকারি হরগঙ্গা কলেজে একাদ্বশ শ্রেণীতে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তিকে কেন্দ্র করে কলেজ ক্যাম্পাসে অধ্যক্ষের কক্ষ ঘেরাও, কক্ষে তালা, ইট পাটকেল নিক্ষেপ ও কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে ছাত্রলীগ। এ পরিস্থিতিতে কলেজ ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শিক্ষার্থী ভর্তি সুবিধার দাবিতে মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে স্থানীয় ছাত্রলীগ কলেজ ক্যাম্পাসে অধ্যক্ষকে এক ঘন্টা অবরুদ্ধ করে ওইসব ঘটনা ঘটায়।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম জানান, স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা সকাল ১০টার দিকে সরকারি হরগঙ্গা কলেজের অধ্যক্ষ সুখেন চন্দ্র ব্যানার্জীর কক্ষ ঘেরাও করে তাকে কক্ষে তালা জুলিয়ে দিয়ে অবরুদ্ধ করে রাখে। এ সময় শিক্ষার্থী ভর্তির সুবিধা চেয়ে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে শ্লোগান দেয় ছাত্রলীগ কর্মীরা। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ কর্মীরা অধ্যক্ষের কক্ষ লক্ষ্য করে বেশ কয়েকটি ইট পাটকেল নিক্ষেপ কওে ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে শিক্ষার্থীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ব্যাপারে সরকারি হরগঙ্গা কলেজের অধ্যক্ষ সুখেন চন্দ্র ব্যানার্জী বলেন- একাদ্বশ শ্রেণীতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় নির্দেশিত নিয়ম-কানুন অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের ভর্তি নেওয়া হচ্ছে। ভর্তি তালিকায় নিয়মিত ও ওয়েটিং তালিকায় শিক্ষার্থী রয়েছে। আগে তাদের ভর্তি নিতে হবে। অথচ শিক্ষার্থীদের ভর্তির ক্ষেত্রে সুবিধা পেতে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা অবুঝের মতো কিছু সুবিধা ভোগ করতে চায়। অবুঝের মতো কথা বললে তো আর হবে না।

নিয়ম-কানুন মেনেই সরকারি হরগঙ্গা কলেজে শিক্ষার্থী ভর্তি নেওয়া হবে। তাদের অবৈধ চাহিদা মেটানো সম্ভব নয় বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে সরকারি হরগঙ্গা কলেজ শাখা ছাত্রলীগের নেতা নিবির আহমেদ বলেন- একাদ্বশ শ্রেণীতে শিক্ষার্থী ভর্তি নিয়ে স্যারদের সঙ্গে সামান্য কথা কাটাকাটি হয়েছে। আলোচনার ভিত্তিতে বিষয়টি মিমাংসা করা হয়েছে। বিক্ষুব্ধ কর্মীরা দুয়েকটি ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেছে হয় তো। উল্লেখ করার মতো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

ঢাকা নিউজ এজেন্সি