মানবাধিকার সংগঠনের নামে চাঁদাবাজির অভিযোগ

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে নাম সর্বস্ব এক মানবাধিকার সংগঠনের নামে চাঁদাবাজির অভিযোগ পাওয়া গেছে। ন্যাশনাল মানবাধিকার অপরাধ দমন সাংবাদিক সংস্থার মুন্সীগঞ্জ জেলা কমিটির চেয়ারম্যান রেজাউল করিম খানের বিরুেেদ্ধ চাঁদাবাজির অভিযোগ এনে গত শনিবার সন্ধ্যায় শ্রীনগর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়। অভিযোগটি দায়ের করেন শ্রীনগর থানা জামে মসজিদের সাবেক ইমাম হাফেজ আলাউদ্দিন। তিনি অভিযোগ করেন গত শুক্রবার সকালে রেজাউল করিম খান তাকে মোবাইল ফোনে শ্রীনগর মাশুরগাঁও এলাকায় ন্যাশনাল মানবাধিকার অপরাধ দমন সাংবাদিক সংস্থার কার্যালয়ে ডেকে নেন। সেখানে যাওয়ার পর রেজাউল করিম খান নিজেকে ওই সংস্থার চেয়ারম্যান পরিচয় দিয়ে বলেন-আপনার বিষয়ে অভিযোগ আছে। আপনি তাবিজ কবচ বিক্রি করেন এবং ঝার-ফুক করে মানুষের কাছ থেকে টাকা পয়সা নেন। আপনাকে ছাড়া হবেনা। যদি যেতে হয় তাহলে ১ লাখ টাকা দিয়ে তার পর যেতে হবে।

এ সময় হাফেজ আলাউদ্দিন নিজেকে শ্রীনগর থানা জামে মসজিদের সাবেক ইমাম হিসাবে পরিচয় দিলে রেজাউল ও সংস্থার অন্য সদস্যরা ক্ষেপে উঠেন। তারা বলেন তুই তো থানা মসজিদের ইমাম। আমারা মানবাধিকারের লোক, র‌্যাব-পুলিশও আমাদের সমীহ করে চলে। পরে রেজাউল টাকার অঙ্ক ৫০ হাজারে নামিয়ে আনেন। অবস্থা বেগতিক দেখে হাফেজ আলাউদ্দিন ২০ হাজার টাকা দিতে রাজি হন। আগামী মঙ্গলবার ২০ হাজার টাকা ওই অফিসে পৌছে দেওয়ার শর্তে সংস্থার খালি ফরমেটে সাক্ষর নিয়ে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। পরদিন তিনি শ্রীনগর থানায় পুরো বিষয়টি উল্লেক্য করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মাহবুবুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অভিযোগটি অধিক তদন্তের জন্য থানার সেকেন্ড অফিসারকে দেওয়া হয়েছে। তদন্তকারী কর্মকর্তা মোজাম্মেল হোসেন জানান, রেজাউলকে রবিবার সকালে থানায় ডেকে আনা হয়েছিল। তিনি জানিয়েছেন সংস্থায় অভিযোগ থাকায় তিনি হাফেজ আলাউদ্দিনকে তার কার্যালয়ে ডেকে নেন।

এ ব্যাপারে রেজাউল করিম খান বলেন, তার কাছে এক নারী অভিযোগ করায় তিনি হাফেজ আলাউদ্দিনকে তার কার্যালয়ে ডেকে নিয়েছিলেন। সেখানে ২০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ হিসাবে আদায়ের সিদ্ধান্ত হয়। কোন চাঁদা দাবি করা হয়নি। তবে তার সংস্থার কোন অভিযোগ গ্রহণ করার সরকারি অনুমোদন আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি সদুত্তর দিতে পারেননি। তিনি আরো জানান সংগঠনের নামের একাংশে অপরাধ দমন সাংবাদিক সংস্থা লেখা থাকলেও তারা কোন পত্র পত্রিকার সাংবাদিক বা প্রতিনিধি নন।

ঢাকা নিউজ এজেন্সি