টঙ্গীবাড়ীতে ভাইয়ের সাথে অভিমান করে স্কূল ছাত্রীর আত্মহত্যা

ব.ম শামীম: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার বালিগাওঁ উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেনীর ছাত্রী আয়শা আক্তার শ্রাবন্তি (১৩) মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় বড় ভাইয়ের সাথে অভিমান করে নীজ ওড়না পেচিঁয়ে তাদের বাসস্থান বালিগাওঁ উচ্চ বিদ্যালয়ের টিন সিড কোয়াটর এর আড়ার সাথে ফাসঁ দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। তার পিতা মো. আনোয়ার হোসেন (বাবুল) উক্ত বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরীর চাকুরী করেন।

সে সুত্রে স্কুল কোয়াটারে বসবাস করতো তারা। জানাগেছে, মঙ্গলবার সকালে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শ্রাবন্তির বড় ভাইয়ের সাথে তার কথা কাটাকাটি হয়। পরে সকলের অজান্তে সে গলায় নীজ ওড়না পেচিঁয়ে আত্মহত্যা করে। টঙ্গীবাড়ী থানা এসআই মোজাম্মেল হোসেন জানান, শ্রাবন্তীর পরিবার সূত্রে জানানো হয়েছে, সে দীর্ঘদিন যাবৎ পেটের পিরায় ভোগতেছিলো, পেটের পিরার যন্ত্রনা সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করেছে। সে আরো জানায়, শ্রাবন্তীর পরিবারের অনুরোধ এবং উদ্ধতন কর্তৃপক্ষের আদেশে শ্রাবন্তীর লাশ ময়নাতদন্তে না পাঠিয়ে সুরতহাল করে পরিবার এর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। শ্রাবন্তীর পিতা বাবুল মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার কাতলাপাড়া গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা।

===========

মুন্সীগঞ্জে স্কুলছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ীতে স্কুলের পাশের একটি ঘর থেকে শ্রাবন্তী (১৪) নামে এক স্কুলছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তিনি জেলার টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বালিগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। ওই স্কুল লাগোয়া নিজ বসত-ঘরের আঁড়ার সঙ্গে শক্ত রশি দ্বারা গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় মঙ্গলবার দুপুর ১টার দিকে পুলিশ স্কুল শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার করে।

শ্রাবন্তী বালিগাঁও কলেজের পিয়ন দেলোয়ার হোসেনের মেয়ে।


টঙ্গিবাড়ী থানার ওসি এসএ খালেক জানান, স্কুল শিক্ষার্থী শ্রাবন্তী পরিবারের সঙ্গে জেদ করে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত যে কোনো সময়ে পরিবারের সবার অগোচরে নিজ বসত-ঘরে আঁড়ার সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগিয়ে স্কুল শিক্ষার্থী শ্রাবন্তী আত্মহত্যা করেছে।

এ সময় ভেতর থেকে ঘরের দরজা লাগানো ছিল। পরে দরজা ভেঙ্গে পুলিশ শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে। নিহত স্কুল শিক্ষার্থীরা ২ ভাই ও ১ বোন।

জাস্ট নিউজ