বিএনপি নেতাকর্মীদের আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ার নির্দেশ

দুযোর্গপূর্ণ আবহাওয়া ও ভারি বর্ষণ হলেও মুন্সীগঞ্জে গত দুইদিন ধরে চলছে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৩২তম শাহাদতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান। শাহাদতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান চলছে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে। স্বত:স্ফুর্তভাবে দলীয় নেতাকর্মীরা শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে মিলাদ মাহফিল, আলোচনা সভা ও গণভোজের আয়োজন করেছেন। শীর্ষ নেতারাও বৃষ্টিতে ভিজে সেখানে ছুটে গিয়ে অংশ গ্রহণ করেন। এবারই প্রথম জেলার ৬টি উপজেলার প্রতিটি ওয়ার্ডে শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে নানা কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়। আর এসব কর্মসূচি পালনে অর্থের যোগানও দেয় ওয়ার্ডের নেতাকর্মীরা। তত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন, আগামী আন্দোলন সংগ্রামে কর্মীদের সক্রিয় অংশ গ্রহণ ও এলাকা ভিত্তিক তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সুসংগঠিত করে ইস্পাত-কঠিন আন্দোলন করার জন্য দিক-নির্দেশনা দেয়া হয়।

এ কর্মসূচি পালনের মধ্য দিয়ে অনেকটা নির্বাচনের প্রস্ততিও নেয়া হচ্ছে। আর এ লক্ষ্যে মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের দলীয় প্রার্থী জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য তার নির্বাচনী এলাকার গজারিয়া উপজেলার ভবেরচর, গজারিয়া, হোসেন্দি, বালুয়াকান্দি, বাউশিয়া, ভাটেরচর, আনারপুরা, রসুলপুর, মেঘনা ভিলেজসহ অন্তত ২০-২৫ টি স্পট বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত চষে বেড়িয়েছেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন- গজারিয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি প্রফেসর গিয়াসউদ্দিন, সিনিয়র সহ-সভাপতি, গজারিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আহসানউল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকউল্লাহ ফরিদ, জেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ-সভাপতি আমিনুল ইসলাম জসিম প্রমুখ। আর এ আসনের সদর উপজেলা এলাকা চষে বেড়িয়েছেন তার ছোট ভাই সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন।

মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার বিভিন্ন এলাকার অনুষ্ঠানগুলোর দায়িত্বে ছিলেন-মুন্সীগঞ্জ পৌর সভার মেয়র ও শহর বিএনপির সভাপতি এ কে এম ইরাদত মানু। শহরের থানারপুলস্থ জেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে কর্মসূচির আয়োজনে ছিলেন সাবেক ছাত্র নেতা ২ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি মাহবুব-উল আলম স্বপন, সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন সরকার ও জেলা ছাত্রদলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা। মুন্সীগঞ্জ-২ নির্বাচনী এলাকার টঙ্গিবাড়ী ও লৌহজং উপজেলার অন্তত ৬০-৬২টি গণভোজের স্পট দিনভর চষে বেড়ান আগামী নির্বাচনে ওই আসনের দলীয় প্রার্থী, সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহা। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন-জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর মল্লিক রিপন, লৌহজং উপজেলা বিএনপির সভাপতি শাহজাহান খান, সাধারণ সম্পাদক কহিনূর সিকদার, টঙ্গিবাড়ী উপজেলা বিএনপির সভাপতি খান মনিরুল মনি পল্টন ও সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন দোলন প্রমুখ। লৌহজং উপজেলা বিএনপির সভাপতি শাহজাহান খান বলেন, শুক্রবার উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে শহীদ জিয়ার শাহাদতবার্ষিকী পালন করা হয়।


এর আগে বৃহস্পতিবার লৌহজং উপজেলার ৮০টি ওয়ার্ডে গণভোজসহ নানা কর্মসূচি পালন করা হয়। এসব অনুষ্ঠানে মিজানুর রহমান সিনহা উপস্থিত ছিলেন। শুক্রবার সকালে সিরাজদিখান ও শ্রীনগরে স্বেচ্ছাসেবক দলের আলোচনা সভা, মিলাদ মাহফিল ও গণভোজে কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আওলাদ হোসেন উজ্জল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে, শহীদ জিয়ার শাহাদতবার্ষিকীতে মুন্সীগঞ্জ-১ নির্বাচনী এলাকার শ্রীনগর ও সিরাজদিখানের কোন অনুষ্ঠানে ওই আসনের সম্ভাব্য প্রার্থী বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনের উপস্থিতি মিলেনি বলে দলীয় একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছেন। শ্রীনগরে উপজেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ মমিন আলী ও সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে নানা কর্মসূচি পালিত হয়।জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর মল্লিক রিপন বলেন, শহীদ জিয়ার এ শাহাদতবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে দলকে সংঘটিত ও দলীয় নেতাকর্মীদের আগামী দিনগুলোতে দলীয় কর্মসূচিতে অংশ গ্রহণ করে কঠিন ইস্পাত আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ার দিক-নির্দেশনা দেয়।

dhakanewsagency