সিপাহীপাড়ায় পল্লী বিদ্যুত অফিসে ছাত্রলীগের হামলা, ভাঙচুর

মুন্সীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুত অফিসের গাড়ির টেন্ডার জমা দেয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের ক্যাডাররা সশস্ত্র মহড়া দেয়াছাড়াও অফিসের বিভিন্ন ডিসপ্লে ও দরজা-জানালা ভাঙচুর করেছে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। রবিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মুন্সীগঞ্জের পল্লী বিদ্যুত অফিসের প্রধান কার্যালয় সিপাহীপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

মুন্সীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুত অফিসের জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) মো. মাহবুবুর রহমান জানান, মুন্সীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুত অফিসের ৩টি পিকআপ ভ্যান ও ৭টি মোটর সাইকেল বিক্রির টেন্ডার আহ্বান করা হয়। এ লক্ষ্যে রামপাল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কবির হোসেন ও রামপাল কলেজে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জনির নেতৃত্বে একদল কর্মী সশস্ত্র মহড়া দিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টির চেষ্টা চালায়।


তারা অফিসে দরজা-জানালায় লাঠি-সোটা দিয়ে আঘাত করে। অফিসের বিভিন্ন ডিসপ্লে ভাঙ্‌চুর করে। তারা এককভাবে টেন্ডার অংশ গ্রহণ ও গাড়িগুলো নামমাত্র মূল্যে নেয়ার জন্য এ কর্মকা- চালায় বলে তিনি দাবি করেন। সকাল ১০ টার দিকে হাতিমাড়া ফাঁড়ির ও সদর থানার পুলিশ সিপাহীপাড়া পল্লী বিদ্যুত অফিসে পৌঁছলে তারা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।


রবিবার দুপুর ১২ টা পর্যন্ত সিডিউল জমা দেয়ার শেষ সময় ছিল। পরে ২২টি সিডিউল জমা হয়েছে বলে হাতিমারা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই ফরহাদ হোসেন জানিয়েছেন।

জাস্ট নিউজ
=================

মুন্সীগঞ্জে ছাত্রলীগের তান্ডব !

পুরানো গাড়ির টেন্ডার জমা দেয়াকে কেন্দ্র করে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে ভাংচুরের করেছে ছাত্রলীগ। রোববার সকালে মুন্সীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের জেলার প্রধান কার্য়ালয় সদর উপজেলার সিপাহীপাড়া এলাকয় এই ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, ১টি পিকআপ ভ্যান ও ৪টি মোটর সাইকেল বিক্রির দরপত্র আহবান করারকে কেন্দ্র করে রামপাল ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি কবির হোসেন ব্যাপারী ও রামপাল কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদক জালাল উদ্দিন জনিসহ তাদের সমর্থকদের নিয়ে টেন্ডার জমাদিতে গেলে নির্ধারিত সময়ের আগে স্থানীয় যুবলীগ সভাপতি মোঃ সোহেল ও মুজিব সেনা নামের একটি সংঠনের সভাপতি মোঃ মহসিনসহ তাদের লোকজন টেন্ডার জমা দিয়ে দেয়।

এই ঘটনায় উত্তেজিত হয়ে উপরে উল্লিখিত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের কাচের দরজা-জানালাসহ কয়েকটি ফুলের টব ভাংচুর করে। পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনা স্থলে আসার আগেই ভাংচুরকারীরা স্থান ত্যাগ করে।


এ ব্যাপারে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের (জিএম) মোঃ মাহাবুবুর রহমান জানান, ১টি পিকআপ ভ্যান ও ৪টি মোটর সাইকেল বিক্রির দরপত্র আহবান করারকে কেন্দ্র করে এই ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে । তবে কেউ আহত হয়নি।

এই ঘটনার সাথে জড়িত ছাত্রলীগ নেতা কবির হোসেন ব্যাপারী সাথে যোগাযেগ করা হলে তিনি ভাংচুরের ঘটনাটি অস্বীকার করে বলেন, আমরা টেন্ডার জমা দিতে গিয়েছি মাত্র। আমাদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগটি করা হয়েছে তা সঠিক নয় এবং আমরা এই ভাংচুরের ঘটনাটি সাথে জড়িত নই।


মুন্সীগঞ্জ সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ শহীদুল ইসলাম জানান, ঘটনার সাথে যারা জড়িত রায়েছে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে সঠিক প্রমান পাওয়া গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজএক্সপ্রেস