মুন্সীগঞ্জে বিচারক শূন্যতায় বিচারপ্রার্থীরা বিপাকে

মুন্সীগঞ্জ জজশিপে বিচারক সঙ্কটের বিচারপ্রার্থীরা বিড়ম্বনায় পড়েছে। জেলা ও দায়রা জজ, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ এবং চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট না থাকায় এখানে বিচার কার্যে নানা রকম সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। প্রায় এক বছর ধরে খালি রয়েছে মুন্সীগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারকের পদটি। গত বছরের ৪ এপ্রিল এই পদের বিচারক হোসনে আরা আক্তার বদলি হওয়ার পর এই পদে আর কোন বিচারক যোগদান করেননি। এই আদালতে এখন মামলা সংখ্যা ২ হাজার ৩শ’ ১৩। বিগত দিনে এই আদালতের মামলার বিচার করছিলেন জেলা ও দায়রা জজ। কিন্তু গত ২১ মার্চ জেলা ও দায়রা জজ মোঃ মঞ্জুরুল বাছিদ লক্ষ্মীপুর জেলায় বদলি হওয়ার পর থেকে এখানে বদলিকৃত নতুন বিচারক এখনও যোগদান করেননি। জেলা ও দায়রা জজ ও অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারকের পদ একই সঙ্গে খালি থাকায় সমস্যা প্রকট হয়েছে। এই দুটি গুরুত্বপূর্ণ আদলতের দায়িত্ব নেয়ার কোন বিচারক এখানে না থাকায় বহু বিচারপ্রার্থী বিড়ম্বনায় পড়েছেন।


আদালত সূত্রে জানা গেছে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক ২/৪ দিনের মধ্যেই যোগদান করবেন। এদিকে চীফ জুডিশিায়াল আদালতের বিচারক নেই গত বছরের ১৮ অক্টোবর থেকে। এই আদালতে মামলার সংখ্যা ৫ শতাধিক। অতিরিক্ত চীফ জুডিশিায়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন তাঁর দায়িত্বের পাশাপাশি এই আদালতটিতেও বিচারকের দায়িত্ব পালন করছেন। পিপি এ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন জানান, অতিরিক্ত চীফ জুডিশিায়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন হাইকোর্টের রেজিস্ট্রার হিসেবে বদলি হয়েছেন। তিনিও শীঘ্রই নতুন কর্মস্থলে যোগদান করবেন। এতে ফৌজদারী বিচার প্রার্থীরাও পড়বেন বিপাকে।


জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এ্যাডভোকেট মুজিবুর রহমান জানান, আদালতের বিচারক শূন্যতাই মামলার জট বাড়িয়ে দেয়। সেখানে গুরুত্বপূর্ণ ৩টি আদালতে বিচারক না থাকায় সমস্যা হচ্ছে। তবে জেলা ও দায়রা জজ শীঘ্রই যোগদান করবেন বলে তিনি আশা করছেন।
জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোঃ দেলোয়ার হোসেন জানান, গুরুত্বপূর্ণ ৩টি আদালতে শীঘ্রই বিচারক যোগদান করা প্রয়োজন। নতুবা এখানে বিচারপ্রার্থীদের বিড়ম্বনা বাড়বে। অর্পিত সম্পতির মামলার সংখ্যা এই জেলায় বেশি হওয়ার কারণে জেলা জজ ও অতিরিক্ত জেলা জজ আদালতেই বিচারক থাকা অত্যাবশ্যক।

জনকন্ঠ