মুন্সিগঞ্জে গাড়ি ভাঙচুর, টায়ারে আগুন

মুন্সিগঞ্জে গাড়ি ভাঙচুর, টায়ারে আগুন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে হরতাল সমর্থকরা। মঙ্গলবার সকালে মুক্তারপুর সেতুর ঢালে হরতাল সমর্থকরা ৫টি গাড়ি ভাঙচুর করে। মুন্সীগঞ্জ-মুক্তারপুর সড়কের একাধিক স্থানে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করা হয়।

এদিকে, মুক্তারপুর এলাকায় হরতালের সমর্থনে জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর রিপন মল্লিকের নেতৃত্বে পৃথক বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। শহরের ছাত্রদল নেতাকর্মীরা হরতালের সমর্থনে আরেকটি মিছিল বের করে।

মুক্তারপুর নৌ ফাড়িঁর উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মোশারফ হোসেন বাংলানিউজকে জানান, হরতালকারীরা কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করতে পারে। তবে, মুক্তারপুরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক।

অপরদিকে, ঢাকা-মাওয়া ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের এবং ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। লোকাল যানবাহন চলাচল করছে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
=====================

মুন্সিগঞ্জে গাড়ি ভাংচুর ও টায়ার জ্বালিয়ে হরতাল পালিত হচ্ছে

শহরে ছাত্রদলের উদ্যোগে বুধবার সকাল থেকে হরতালের সমর্থনে ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী মাসুদ রানার নেতৃত্বে মিছিল হয়েছে। অপরদিকে মুক্তারপুর ব্রিজের ঢালে জেলা সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আলী আজগর রিপন মলিস্নকের নেতৃত্বে খন্ড খন্ড মিছিল করে ও টায়ার জ্বালিয়ে হরতাল পালন করছে হরতাল সমর্থকরা। হরতাল সমর্থণকারীরা ব্রিজের উপরে ও নয়াগাও এলাকায় ১০-১২টি গাড়ি ভাংচুর করেছে। গভীর রাতে লৌহজং উপজেলার নওপাড়া রোডের দুটি বাসে আগুন দিয়েছে দুবৃত্তরা।

বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে গ্রেফতারকৃত শীর্ষ নেতাদের মুক্তির দাবীতে ডাকা টানা দু’দিনের হরতালের ২য় দিনে মুন্সিগঞ্জের হরতালের সমর্থনে মুক্তারপুর ধলেশ্বরী সেতু এলাকায় টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে সড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে পিকেটাররা। এছাড়া শহরের উপকন্ঠে মুক্তারপুর ও শহরের প্রধান সড়কে খন্ড খন্ড মিছিল করেছে বিএনপি ও ছাত্রদলনেতাকর্মীরা। অফিস আদালত খোলা থাকেলও বন্ধ রয়েছে শহরের অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। তবে বিএনপি অধ্যুশিত এলাকা মুক্তারপুর ও পশ্চিম মুক্তারপুর শিল্পাঞ্চলের সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। মুন্সিগঞ্জ শহর থেকে মুন্সিগঞ্জ-মুক্তারপুর সড়কে আজও বাস ও বড় যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে রিকশা ও ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা চলাচল করছে। গুরম্নত্বপূর্ন ঢাকা-চট্রগ্রাম ও ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কে দূর পালস্নার সকল যাত্রীবাহী বাসসহ সকল প্রকার যান চলাচল বন্ধ রয়েছে বলে জানিয়েছে সংশিস্নষ্ট থানা পুলিশ সুত্র। কিছু রিকশা ও সিএনজি চালিত অটোরিকশা চলাচল করলেও সংখ্যায় খুব কম। তবে মাওয়া-কাওড়াকন্দি নৌ-রম্নটে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক। তবে দূর পালস্নার যানবাহন না থাকায় ঘাটে অপেক্ষা করছে ফেরিগুলো। হরতালের অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আমিনুল ইসলাম জসিম, জাসাসের সাধারণ সম্পাদক মঈনউদ্দিন আহম্মেদ সুমনসহ সকল নেতাকর্মী।

টিএনবি